banner

শেষ আপডেট ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১,  ১৯:৫৯  ||   শনিবার, ১৮ই সেপ্টেম্বর ২০২১ ইং, ৩ আশ্বিন ১৪২৮

নেমক হারামের কবর

নেমক হারামের কবর

৩১ অগাস্ট ২০২১ | ১০:২২ |    নিজস্ব প্রতিবেদক
  • নেমক হারামের কবর
মনজুরুল চৌধুরী ::
 মীরজাফরের বিচার কোনো আদালতে হয়নি। তবু মীরজাফর ইতিহাসে এক ঘৃণিত ব্যক্তি।তেমনি বাংলার আরো দুই ঘৃণিত ব্যক্তি মোস্তাক ও জিয়ার বিচার হয়নি। মুর্শিদাবাদে মীরজাফরের ধ্বংসপ্রায় প্রাসাদে ঢোকার প্রধান ফটকটি ইতিহাসে সরকারি দলিলে এবং ট্যুরিস্ট গাইড বইয়ে ‘নেমক হারাম দেউর’ বা ‘বিশ্বাসঘাতকের গেট’ নামে পরিচিতি। মীরজাফর’ শব্দটি বিশ্বাসঘাতকতার প্রতিশব্দ , মীরজাফর একটি জঘন্য গালি ভারত উপমহাদেশে। ইয়াজিদ মুসলমানদের একজন বেইমান এবং নরঘাতক হিসাবে পরিচিত, অসুর একই ভাবে সনাতন ধর্মে ঘৃণিত। বাংলার মানুষের কাছে মোস্তাক জিয়া দণ্ডিত ঘৃণিত মীরজাফর। চন্দ্রিমা উদ্যানে আর এক বিশ্বাসঘাতকের মাজার তুলে দেয়া, জনগণ দেখার অপেক্ষায় রইলো।
সংসদ ভবন জাতীয় পরিচয়ের নিদর্শন। সেখানে – “নেমক হারাম কবর” থাকা জাতীর জন্য কলঙ্ক। এ কবর অবশ্যয় নির্জন স্থানে নিয়ে যাওয়া হউক। জিয়ার সাথে বিখ্যাত রাজাকারদের এক সাথে কবর দেয়া যেতে পারে। তাদের কবরের উপর নিমক হারাম মাজারস্থান নাম দেওয়া যায় কিনা কর্তৃপক্ষের নিকট আবেদন রইলো।
সঠিক নেতৃত্ব ছাড়া কোনো জাতি, দেশ, কোনো সংগঠন চলতে পারে না। জাতির উত্থান-পতন অনেকাংশে নির্ভর করে নেতৃত্বের ওপর। বাংলাদেশের প্রথম জাতির মেরুদণ্ড ভেঙ্গে দেন জিয়া। দেশ, জাতি, সমাজ, পরিবারসহ সব স্থানে সঠিক নেতৃত্ব গুরুত্বপূর্ণ। একটা পরিবারে যদি সঠিক নেতৃত্ব না থাকে; তাহলে ওই পরিবারে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় থাকে না , তারেক জিয়া তার একটি নমুনা।
দেশ ও জাতির উন্নয়নে অবদান রাখতে চাইলে নেতৃত্ব চর্চার বিকল্প নেই , যেটা জননেত্রী শেখ হাসিনা কাছে আছে। একজন সফল নেতৃত্ব সমাজের বিদ্যমান সমস্যাগুলো সহজেই বুঝতে পারে। সে অনুযায়ী সমস্যার সমাধানে উদ্যোগী হয়। তাই আমাদের নিজেদের মধ্যে শেখ হাসিনার মত প্রতিনিয়ত নেতৃত্বের বিকাশ সাধন ও চর্চায় মনোযোগ দেয়া উচিত।
নেতৃত্ব অর্জন করতে হলে বা নেতৃত্ব দিতে হলে নেতৃত্বের গুণগুলো নিজের মধ্যে ধারণ করতে হবে যেটা খালেদা জিয়ার নিকট বিন্দুমাত্র ছিল না। সেই জন্য নিজের ছেলেদের যেমন মানুষ করতে পারে নেই, দেশ কোন উন্নয়নের ছোঁয়া লাগাতে পারে নেই। নিজের আরম আয়েশে দিন কেটেছেন, জনগণ বা দেশের জন্য ভাবার সময় ছিল না। টাকার লোভে আত্মম্ভরী ছিলেন। সমাজ বিনির্মাণ ও পরিবর্তনের প্রথম শর্ত সঠিক নেতৃত্ব। সৎ ও দক্ষ নেতৃত্বের গুণে এগিয়ে যেতে পারে সমাজ ও দেশ , সেই কাজটি করছেন আওয়ামী সরকার, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন সোনার বাংলা বাস্তবায়ন লক্ষে এগিয়ে যাচ্ছে।
জিয়া প্রতি পদে পদে বঙ্গবন্ধুকে অপমান করেছেন। একজন মুক্তিযুদ্ধার চরিত্র তার কাছে ছিলনা। শিখিয়ে গেছেন দুর্নীতি , রাহাজানি ,ধর্ষণ , অস্ত্রের জঞ্জানি, ছাত্রদের হাতে আর্মস দিয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ধ্বংস করে দিয়েছে। একই ধারাবাহিতা তার স্ত্রী খালেদা এবং কুপুত্র তারেক লুটপাটের রাজনীতির মাধ্যমে জাতির অর্থনীতি শেষ করেছে। জিয়াকে সম্মান করার কোন রাস্তা নেই। তাকে আবর্জনায় ফেলে দেয়ার সময় এসেছে। জাতি এখন বুঝতে পারছেন জিয়াকে ঢাকা থেকে নির্বাসনে পাঠাতে হবে। এখন জনগণ অপেক্ষায় আছে কখন জিয়ার মাজার সারানো হবে। জাতি কলঙ্ক মুক্ত হতে চাই।