banner

শেষ আপডেট ৫ মে ২০২১,  ২২:১৯  ||   মঙ্গলবার, ১১ই মে ২০২১ ইং, ২৮ বৈশাখ ১৪২৮

ভোজ্যপণ্যের দাম বৃদ্ধির ষড়যন্ত্রের এহেন কর্মকান্ডের অবসান চায়

ভোজ্যপণ্যের দাম বৃদ্ধির ষড়যন্ত্রের এহেন কর্মকান্ডের অবসান চায়

৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ২০:০৪ |    নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ভোজ্যপণ্যের দাম বৃদ্ধির ষড়যন্ত্রের এহেন কর্মকান্ডের অবসান চায়

ভোজ্যতেলের দাম প্রতি লিটারে ১০ টাকা করে বৃদ্ধি পেয়েছে। ইতোপূর্বে আমরা দেখেছি ভরাআমন মৌসুমে চালের দাম বৃদ্ধি পেতে। বাজারের নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যসামগ্রী যথাযথ সরবরাহ থাকলেও মাঝে মাঝে ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের ষড়যন্ত্রে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন দ্রব্যের দাম অকারণে বৃদ্ধি পায়। প্রশাসন কিংবা সাংবাদিকরা জানতে চাইলে অসাধু ব্যবসায়ীরা নানা রকম যুক্তি দিয়ে দাম বৃদ্ধির কারণ ব্যাখ্যা করতে দেখা যায়। দেশে ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট বৃদ্ধি পেয়েছে নিঃসন্দেহে।

অসাধু অমানবিক ব্যবসায়ীরা জনগণকে বারবার জিম্মি করে দেশের ভোজ্যপণ্যের বাজার অস্থিতিশীল করে তুলতে দেখা যায়। তাদের বিরুদ্ধে সরকার ও প্রশাসন এ পর্যন্ত দৃঢ় কোন পদক্ষেপ নিতে পারছে না। কিছুদিন পূর্বে পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধি নিয়ে দেশে এক অরাজক অবস্থা আমরা লক্ষ্য করেছি। পরে দেখা গেছে টনকে টন পচা পেঁয়াজ ব্যবসায়ীরা কর্ণফুলিতে ফেলে দিতে। যারা খাদ্যসামগ্রী বা ভোজ্যপণ্য মজুদ করে তারা সময়ে অসময়ে নিজস্ব আর্থিক সুবিধার জন্য কৃত্রিম অজুহাত দেখিয়ে বিভিন্ন পণ্যের দাম বাড়িয়ে দেয়।

আমরা লক্ষ্য করছি দেশে ব্যবসায়ীরা নানাপ্রকার লাগামহীন কর্মকান্ড করে যাচ্ছে। সরকার ও প্রশাসনের পক্ষ হতে তাদের এহেন অপকর্ম রোধে প্রকৃতপক্ষে কোন কার্যকর পদক্ষেপ দেখা যায় না। প্রশাসন এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে ব্যবসায়ীদের এমন দেশবিরোধী এবং অমানবিক কর্মকান্ড ধরা পড়লেও তাতে ব্যবসায়ীরা নিয়ন্ত্রিত হতে দেখা যায় না। তার প্রধান কারণ হলো ভোজ্যপণ্য মজুদ বা গুদামজাতকারীদের উপর সরকারি কড়া নজরদারি এবং কি পরিমাণ ভোজ্যপণ্য গুদামে যাচ্ছে এবং গুদাম হতে বাজারে যাচ্ছে তার যথাযথ হিসাব সরকারের কাছে পৌঁছছে না।

দেশে চাল, ডাল, তেল, পেঁয়াজ, রসুন, আদাসহ নিত্য প্রয়োজনীয় ভোজ্যপণ্যের উৎপাদন, মজুদ, আমদানি এবং বাজারজাতের উপর কড়া নজরদারী ছাড়া ব্যবসায়ীদের শায়েস্তা করা সম্ভব নয়।আন্তর্জাতিক বাজারে ভোজ্যতেলের মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে এমন কোন খবর সরকারি-বেসরকারি সংবাদ মাধ্যমে কিংবা আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমে আসতে আমরা দেখিনি। অথচ অসাধু ব্যবসায়ীরা আন্তর্জাতিক বাজারে ভোজ্যতেলের দাম বৃদ্ধির অজুহাতে তেলের দাম বাড়িয়ে বিক্রি করছে। শুধু তেলের দাম নয় বাজারে অহেতুক কি কি পণ্য নিয়ে অসাধু ব্যবসায়ী ও সিন্ডিকেট পাঁয়তারা করছে তাতে সরকার ও প্রশাসনের কার্যকর নজরদারী জরুরি। ব্যবসায়ীরা ক্রেতা সাধারণকে জিম্মি করে অকারণে ক্রেতাদের উপর জুলুম করে যাবে কোন সভ্য দেশে এমন হঠকারী কর্মকান্ড চলতে পারে না। জনগণ ভোজ্যতেলসহ সব ধরনের ভোজ্যপণ্যের দাম বৃদ্ধির ষড়যন্ত্রের এহেন কর্মকান্ডের অবসান চায়।