banner

শেষ আপডেট ২৪ অক্টোবর ২০২১,  ১২:২৮  ||   রবিবার, ২৪ই অক্টোবর ২০২১ ইং, ৯ কার্তিক ১৪২৮

 এটিএস পার্ল লিমিটেডের ২৯.৩৭ কোটি টাকা শুল্ক ফাঁকি

 এটিএস পার্ল লিমিটেডের ২৯.৩৭ কোটি টাকা শুল্ক ফাঁকি

২ অক্টোবর ২০২১ | ০০:০৫ |    নিজস্ব প্রতিবেদক
  •  এটিএস পার্ল লিমিটেডের ২৯.৩৭ কোটি টাকা শুল্ক ফাঁকি

নিজস্ব প্রতিবেদক:  ইপিজেড থেকে তৈরি পোশাক বের করতে একাধিকবার রপ্তানি অনুমতি ব্যবহার করেছে এটিএস পার্ল লিমিডেট। এই একাধিক ‘রপ্তানি অনুমিত’ মাধ্যমে বন্ড সুবিধা অপব্যবহার করে এটিএস পার্ল ২৯.৩৭ কোটি টাকা শুল্ক ফাঁকি দিয়েছে বলে জানান কাস্টমস বন্ড কমিশনারেট।

চট্টগ্রাম কাস্টমস বন্ড কমিশনারেট জানান, রপ্তানিমুখী পোশাক কোম্পানি এটিএস পার্ল লিমিটেড বন্ডেড গুদাম সুবিধা অপব্যবহার করে ২৯.৩৭ কোটি টাকা কর ফাঁকি দিয়েছেন। গত ২২ সেপ্টেম্বর এই বিষয়ে এটিএস পার্লকে একটি কারণ দর্শানোর নোটিশ জারি করেন কমিশনারেট, আগামী ৩০ দিনের মধ্যে তার জবাব দিতে বলা হয়ছে।

কাস্টমস বন্ড কমিশনারেটের কমিশনার এ কে এম মাহবুবুর রহমান বলেন, যে কোন কোম্পানিকে বিদেশে রপ্তানিকৃত পণ্যের একটি চালানের জন্য একটি করে ‘রপ্তানি অনুমতি’ নিতে হয় । কিন্তু ১১৬টি বিলে একাধিকবার রপ্তানি অনুমতি ব্যবহার করেছে এটিএস পার্ল। তাই এই কোম্পানির বিরুদ্ধে শুল্ক ফাঁকির অভিযোগে একটি মামলা তদন্ত করছে বন্ড কমিশনারেট। এই অভিযোগ প্রমাণিত হলে শুল্ক আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবো আমরা।

সংশ্লিষ্ট সূত্র থেকে জানা যায়, বাংলাদেশ ব্যাংক ও কাস্টমসের অ্যাসাইকুডা সফটওয়্যারে মতে, গত ২২ সেপ্টেম্বর কোম্পানি বিদেশে পোশাক রপ্তানির জন্য কাস্টমস কর্তৃপক্ষ থেকে ১১৬টি বিলে প্রয়োজনীয় নথি নিয়ে ছিলো । কিন্তু নথিপত্র যাচাই -বাছাই করার সময় দেখা যায়, যে রপ্তানি অনুমতিতে উল্লিখিত পণ্যগুলোর পরিমাণ এটিএস পার্লের রপ্তানিকৃত পণ্যগুলোর পরিমাণের চেয়ে বেশি।তাই কারণ দর্শানোর নোটিশে বলা হয়েছে, অবৈধভাবে অপসারিত ৮.৯২ লাখ পিসের এটিএস পার্লস-এর তৈরি পণ্যের করযোগ্য মূল্য প্রায় ২২.৯২ কোটি টাকা। ১২৭.৭২ শতাংশ হারে এই পণ্যের উপর শুল্ক প্রায় ২৯.৩৭ কোটি টাকা। কমিশনারেট এটিএস পার্লর বন্ডেড গুদাম লাইসেন্স বাতিল করবে না এবং ২৯.৩৭ কোটি টাকার ফাঁকি শুল্ক আদায় করবেন। তবে যদি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এটিএস পার্ল অভিযোগের জবাব না দেয়, তাহলে শুল্ক ফাঁকির মামলা নিষ্পত্তির জন্য আইনি ব্যবস্থা নেবে কমিশনারেট ।

এটিএস পার্ল লিমিটেড চট্টগ্রাম ভিত্তিক গার্মেন্টস শিল্প গ্রুপ এশিয়ান অ্যাপারেলস এর একটি সহযোগী প্রতিষ্ঠান। গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ আবদুস সালাম, সাবেক প্রথম সভাপতি এবং বাংলাদেশ গার্মেন্টস ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের বর্তমান পরিচালক। আব্দুস সালামের বড় ভাই মোহাম্মদ ইউসুফ এটিএস পার্লের ব্যবস্থাপনা পরিচালক।

উল্লেখ্য, কোম্পানিটি বাংলাদেশ রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেপজা) থেকে ১ জানুয়ারি, ২০২০ থেকে ১ ডিসেম্বর ২০২০ পর্যন্ত ১৫৩ টি রপ্তানি অনুমতি পেয়েছে।