banner

শেষ আপডেট ২৫ অক্টোবর ২০২০,  ১০:১৪  ||   রবিবার, ২৫ই অক্টোবর ২০২০ ইং, ১০ কার্তিক ১৪২৭

ধর্ষকের বিরুদ্ধে যারা চুপ থাকে তারাও ধর্ষক– শওকত বাঙালি

ধর্ষকের বিরুদ্ধে যারা চুপ থাকে তারাও ধর্ষক– শওকত বাঙালি

১ অক্টোবর ২০২০ | ২১:৪৫ |    নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ধর্ষকের বিরুদ্ধে যারা চুপ থাকে তারাও ধর্ষক– শওকত বাঙালি

 

 

প্রেস বিজ্ঞপ্তি : একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির কেন্দ্রীয় প্রথম যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও চট্টগ্রাম বিভাগীয় সমন্বয়ক লেখক-সাংবাদিক শওকত বাঙালি মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় ঐক্যবদ্ধ হয়ে ধর্ষকদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহ্বান জানিয়েছেন।

নারী নির্যাতন, খুন, ধর্ষণের অপ্রতিরোধ্য যাত্রার বিরুদ্ধে তরুণ প্রজন্মকে ভূমিকা রাখার আহ্বান জানিয়ে তিনি আরো বলেন, ধর্ষকের বিরুদ্ধে যারা চুপ থাকে তারাও ধর্ষক। ধর্ষক যে বা যাদের আত্মীয়ই হোক না কেন তার প্রধান পরিচয় সে ধর্ষক। ধর্ষক কারো পিতা কিংবা সন্তান হতে পারে না। একজন পিতা হিসেবে, একজন ভ্রাতা হিসেবে আজকে আমরা শঙ্কিত। দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেলে যেভাবে মানুষ প্রতিশোধ পরায়ণ হয়ে প্রতিরোধ গড়ে তোলে ঠিক তেমনিভাবে সমাজের সচেতন মানুষদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার সময় এসে গেছে।

সারাদেশে অব্যাহত নারী নির্যাতন, খুন, ধর্ষণের প্রতিবাদে আগামী ১০ অক্টোবর, শনিবার, বিকেল ৩টায় নগরীর জামাল খান সড়কস্থ প্রেস ক্লাব চত্বরে আয়োজিত প্রতিবাদী মানববন্ধনের প্রস্তুতি সভায় জনাব শওকত বাঙালি প্রধান বক্তা হিসেবে এসব কথা বলেন।

জেলা নির্মূল কমিটির অন্যতম সহ-সভাপতি দীপংকর চৌধুরী কাজলের সভাপতিত্বে ও কার্যকরী সাধারণ সম্পাদক অলিদ চৌধুরীর সঞ্চালনায় গত ১ অক্টোবর, বৃহস্পতিবার নগরীর মোমিন রোডস্থ চট্টলবন্ধু এসএম জামাল উদ্দিন মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সাংগঠনিক সভায় অন্যদের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন-সংগঠনের জেলা সহ-সাধারণ সম্পাদক এ.কে.এম জাবেদুল আলম সুমন, সাংগঠনিক সম্পাদক নাজমুল আলম খান, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মিথুন মল্লিক, মো. সাহাব উদ্দিন, অসিত বরণ বিশ্বাস, সহ-মহিলা বিষয়ক সম্পাদক সূচিত্রা গুহ টুম্পা, সহ-প্রচার ও গণমাধ্যম সম্পাদক রুবেল চৌধুরী, সাংস্কৃতিক সম্পাদক রাজীব চৌধুরী, কার্যনির্বাহী সদস্য মো. আকতার হোছাইন, আবদুল হাকিম, সঞ্জয় দত্ত, সাজ্জাদ হোসেন তালুকদার, মো. হাসানুর রহমান জিয়াদ, ইমন শীল, জিয়াউল হক জিবলু প্রমুখ।

সভায় অচিরেই পুনরায় সভা আহ্বান এবং নিষ্ক্রিয় কর্মীদের ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণসহ মুক্তিযুদ্ধের প্রশ্নে আপোষহীন ও নিবেদিতপ্রাণদের সংগঠনে সংযুক্তির বিষয়ে নীতিগত সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।