banner

শেষ আপডেট ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০,  ২১:৪১  ||   সোমবার, ২৮ই সেপ্টেম্বর ২০২০ ইং, ১৩ আশ্বিন ১৪২৭

ব্রাম্মণকন্যা মনিষার লাটিম এবার চক্রের বাইরে 

ব্রাম্মণকন্যা মনিষার লাটিম এবার চক্রের বাইরে 

৫ অগাস্ট ২০২০ | ২০:২১ |    নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ব্রাম্মণকন্যা মনিষার লাটিম এবার চক্রের বাইরে 
 রাজিব শর্মা :  বাংলাদেশের বরিশালের মনীষা চক্রবর্তীকে নিয়ে ফেইসবুক সমাজে বেশ শোরগোল উঠেছে। ঘটনা হল, মনীষার দল বাসদ বরিশাল জেলা শাখার পক্ষ থেকে গরু কোরবানি করে বরিশালের প্রায় দেড় হাজার মানুষের মাঝে মাংস বিতরণ করেছেন। সেই বিতরণ কার্যক্রমে তিনি আগাগোড়া উপস্থিত থেকে এই বিতর্কের সূত্রপাত করেছেন। তার এই ঘটনায় জনগণের মাঝে তিনটি ভাগ তৈরি হয়েছে। একভাগে আছেন দেশের হিন্দুধর্মাবলম্বী ফেইসবুকার, যারা মনীষা একজন ব্রাহ্মণ পরিবারের মেয়ে হয়েও গরুর মাংস বিতরণে সামিল হওয়ায় ভীষণ রকম ক্ষিপ্ত, আরেক ভাগে আছেন মুসলিম প্রগতিশীল অংশের ফেইসবুকার যারা এই কাজে মনীষার উদারতা ও অসাম্প্রদায়িকতা খুঁজে পেয়েছেন এবং তারা ভীষণ উল্লসিত, আর শেষ ভাগে আছেন আরেকদল মানুষ যারা নিজেরা ইসলাম ধর্মাবলম্বী এবং মনীষা হিন্দু হয়ে কেন কোরবানির কাজে অংশ নিয়ে কোরবানিকে বিতর্কিত করলেন সেই অপরাধে হিন্দুদের মতই ক্ষুব্ধ।
মনীষা অবশ্য তার ফেইসবুক আইডি থেকে বিবৃতি দিয়ে নিজের অবস্থান পরিষ্কার করেছেন এবং সবাইকে সামপ্রদায়িকতা নয় মানবতার আলোকে উদ্ভাসিত হওয়ার আহবান জানিয়েছেন। তবে আমি সেই আলোচনায় যাব না। আমি বরং একজন ভুলে যাওয়া মানুষের গল্প শোনাই। মনীষার মতই বরিশালে আরেকজন নেতা হঠাৎ করে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছিলেন, তবে তিনি ছিলেন দলিত সমাজের মানুষ। মানে ভদ্রলোকেরা যাদেরকে ছোটলোক বলে ঘেন্না করেন সেই সমাজের মানুষ আর কি। নাম ছিল তার যোগেন্দ্রনাথ মন্ডল, ওরফে যোগেন মন্ডল। একেবারে হতদরিদ্র, অচ্যুত ঘরে জন্ম নিয়েও তিনি জীবনের বহু চড়াই-উতরাই পার হয়ে শেষমেশ একজন আইনজীবী হয়ে উঠতে পেরেছিলেন। এটা আরও একশ বছর আগের কথা, তখন বৃটিশদের শাসন চলছে। আইনজীবী হয়ে তিনি রাজনীতিতে যোগ দিয়ে একের পর এক চমক দেখাতে শুরু করলেন। বরিশালের কিংবদন্তী অশ্বিনীকুমার দত্তের ভাইয়ের ছেলে সরল কুমার দত্তকে হারিয়ে এই অঞ্চলের প্রথম দলিত ব্যক্তি হিসেবে প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য হোন। এরপর ধাপে ধাপে তিনি বাংলার প্রাদেশিক সরকারে সমবায় মন্ত্রী ও বিচার মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। এরপরে যখন দেশ ভাগাভাগি শুরু হয় তখন তিনি ভারতের পক্ষে না গিয়ে পাকিস্তানের পক্ষে কাজ করা শুরু করেন। ব্রাহ্মণ শাসিত হিন্দু সমাজ দ্বারা যুগ যুগ ধরে লাঞ্চিত হওয়ার কারণে তিনি হিন্দুদের দেশে থাকতে চাইলেন না। তিনি চাইলেন আরেক নিপীড়িত জনগোষ্ঠী মুসলমানদের সাথে জোট বেঁধে থাকতে। তার হিসাব ছিল সহজ, হিন্দু অভিজাতদের কাছে অস্পৃশ্য হিন্দুরা যেমন নিপীড়িত, গরীব মুসলমানরাও তেমনি নিপীড়িত। অতএব, দুই নিপীড়িত জনগোষ্ঠী ঐক্যবদ্ধ হতে হবে, পরষ্পরের সহযোগী হতে হবে। গরীবের দুঃখ গরীব ছাড়া আর কে বুঝবে?
এই চিন্তা থেকে তিনি পূর্ব বাংলার সকল দলিত মানুষদের পাকিস্তানে থেকে যাওয়ার আহবান জানালেন। ভারত পাকিস্তান প্রশ্নে সিলেট বিভাগে যখন গণভোট আয়োজন হয়েছিলো তখন যোগেন মন্ডল সর্বশক্তি দিয়ে সিলেটকে পাকিস্তানে রাখার কাজে নেমেছিলেন। এই অঞ্চলের দলিত নেতাদের ঘরে ঘরে গিয়ে তিনি সিলেটকে পাকিস্তানে রাখার পক্ষে ভোট দেয়ার জন্য সকলকে উদ্বুদ্ধ করেছিলেন। তার এই পরিশ্রম বৃথা যায় নি। সিলেটের জনগণ ৫৬%-৪৩% ভোটে সিলেটকে পাকিস্তানে রাখার সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেয়, যেখানে দলিত ভোটের অবদান ছিল উল্লেখযোগ্য। পূর্ব বাংলার অন্যান্য অঞ্চলেও নিম্নবর্গের হিন্দুরা পাকিস্তানে থেকে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়।
তার এহেন তৎপরতায় মুহাম্মদ আলী জিন্নাহ খুব খুশি হোন। তিনি যোগেন মন্ডলকে পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেন এবং পাকিস্তান আইনসভার প্রথম স্পীকারের পদে অধিষ্ঠিত করেন। যোগেন মন্ডলের জীবনের সেরা সময় ছিল সম্ভবত ঐ দিনগুলো। কিন্তু সুখের সময় বেশিদিন থাকলো না। পাকিস্তান গঠিত হওয়ার তিন বছরের মাথায় যখন পূর্ববঙ্গের হিন্দুদের উপর ভয়ংকর হামলা শুরু হয়, ব্রাহ্মণ, ক্ষত্রিয়, দলিত নির্বিশেষে যখন লক্ষ লক্ষ হিন্দুদের ঘরবাড়ি লুটপাট করা হয়, জ্বালিয়ে দেয়া হয়, ধর্মান্তরিত করা হয় তখন তিনি বুঝতে পারেন, তিনি কি ভুল করেছেন। কিন্তু তখন আর সেই ভুল শোধরাবার কোন সুযোগ ছিল না। তাই তিনি তৎকালীন পাকিস্তানের প্রধাণমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে একটি খোলা চিঠির মাধ্যমে পদত্যাগপত্র পত্র পাঠিয়ে পাকিস্তান ত্যাগ করে ভারতে পাড়ি জমান।
তার ভারতের জীবনও খুব সুখকর ছিল না। ভারতে গিয়ে তিনি দলিত সমাজের উন্নতির জন্য আবার রাজনীতি করতে চেয়েছিলেন কিন্তু সেখানে আর কেউ তাকে পাত্তা দেয় নি। না নিজের সমাজ, না অভিজাত সমাজ কেউই তাকে আর আপন করে নেয় নি। সেখানকার মানুষের কাছে তিনি বিশ্বাসঘাতক হিসেবেই প্রতিপন্ন হয়েছেন এবং মাত্র ৬৪ বছর বয়সে একাকী নিঃসঙ্গ অবস্থায় তিনি মৃত্যু বরণ করেন।
আজ যখন মনীষার গরুর মাংস বিতরণের ছবি দেখি তখন আমার যোগেন মন্ডলের কথা বার বার মনে হয়। যে গোহত্যা সনাতন সমাজে পাপ বলে বিবেচনা করা হয়, যে গোহত্যায় তার পরিবার ও আত্মীয় স্বজন অত্যন্ত দুঃখিত হোন, যে গোহত্যার মাধ্যমে দুষ্ট লোকেরা হিন্দুদের মন্দির, বাড়িঘর অপবিত্র করে দেয়, বাড়ির ভেতর গরুর হাড়গোড়, নাড়িভুঁড়ি ফেলে আসে সেই গোহত্যায় অংশ নিয়ে এবং তা সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচার করে মনীষা দেশের হিন্দু / মুসলিম জনগোষ্ঠীকে কি বার্তা দিতে চাইলেন আমার ঠিক বোধগম্য হল না। এর মাধ্যমে কি তিনি সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিম জনগোষ্ঠীর কাছে নিজের অসাম্প্রদায়িক অবস্থান প্রতিষ্ঠিত করার চেষ্টা করলেন? সম্প্রতি বরিশাল কলেজের নাম অশ্বিনীকুমার দত্তের নামে নামকরণের আন্দোলনে তিনি অগ্রণী ভূমিকা পালন করে এক শ্রেণীর মুসলিম জনগোষ্ঠীর কাছে সাম্প্রদায়িক ও হিন্দুত্ববাদী হিসেবে চিনহিত হয়েছেন। এই ঘটনার মাধ্যমে তিনি তাদের মন জয় করার চেষ্টা করলেন কি না বুঝতে পারছি না। নাকি তিনি দেশের হিন্দু জনগোষ্ঠীকে এর মাধ্যমে সেক্যুলারিজমের পাঠ দিলেন?
যাইহোক, সময়ই বলে দেবে মনীষার এমন দুঃসাহসিক কর্মকাণ্ডে কার কি লাভ হয়েছে, তবে আমি চাই তাকে যেন যোগেন বাবুর ভাগ্য বরণ করতে না হয়। আমি চাই তিনি এই মাটিতেই যেন সসম্ভ্রমে বাঁচতে পারেন এবং স্বাভাবিক মৃত্যু বরণ করেন। তার ক্ষেত্রে ইতিহাস যেন ভুল প্রমাণিত হয় কিংবা তিনি যেন নতুন ইতিহাস নির্মাণ করতে পারেন। আমি তার দীর্ঘায়ু ও সুস্বাস্থ্য কামনা করছি।
লেখকঃ রাজিব শর্মা (সাংবাদিক, নারীবাদী ও সমাজকর্মী), রক ভ্যালী মিনিষ্ট্রির ছাত্র।