banner

শেষ আপডেট ৭ ডিসেম্বর ২০১৯,  ২১:১৮  ||   শনিবার, ৭ই ডিসেম্বর ২০১৯ ইং, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

২০২১ সালের মধ্যে বিএসসি’র জাহাজ বহরে যুক্ত হবে আরো ১০টি লাইটার জাহাজ

২০২১ সালের মধ্যে বিএসসি’র জাহাজ বহরে যুক্ত হবে আরো ১০টি লাইটার জাহাজ

২০ নভেম্বর ২০১৯ | ২০:৪৪ |    নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ২০২১ সালের মধ্যে বিএসসি’র জাহাজ বহরে যুক্ত হবে আরো ১০টি লাইটার জাহাজ

ক্রাইম প্রতিবেদকঃ  ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশনের (বিএসসি) বহরে আরো ১০টি লাইটার জাহাজ যুক্ত হবে বলে জানা গেছে। একই সাথে ২টি মাদার বাল্ক ক্যারিয়ার, ২টি মাদার ট্যাংকার ও ২টি মাদার প্রোডাক্ট অয়েল ট্যাংকার সংগ্রহের পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কমডোর সুমন মাহমুদ সাব্বির। আজ বুধবার দুপুরে সল্টগোলায় বিএসসি’র প্রধান কার্যালয়ে ৪২তম বার্ষিক সাধারণ সভা উপলক্ষে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এসব তথ্য জানান। এছাড়া আগামী ২৪ নভেম্বর বেলা ১১টায় চট্টগ্রাম বোট ক্লাবে বিএসসির এজিএম অনুষ্ঠিত হবে বলে জানান তিনি।
কমডোর সুমন মাহমুদ সাব্বির বলেন, বর্তমানে বিএসসির বহরে ৮টি জাহাজ রয়েছে। এর মধ্যে ২০১৮ সালে চীন থেকে সংগৃহীত ৩৯ হাজার টনের নতুন ৬টি জাহাজ এমভি বাংলার জয়যাত্রা, এমভি বাংলার সমৃদ্ধি, বাংলার অর্জন, বাংলার অগ্রযাত্রা, বাংলার অগ্রদূত, বাংলার অগ্রগতি রয়েছে। এ ছাড়া ১৯৮৭ সালে ডেনমার্কে তৈরি বাংলার জ্যোতি ও বাংলার সৌরভ নামের দুইটি ১৪ হাজার ৫১৪ ডিডব্লিউটির ট্যাংকার রয়েছে।
তিনি বলেন, বিএসসি ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ২৩০ কোটি ৭ লাখ টাকা আয় করে। ব্যয় হয় ১৭৪ কোটি ৮৪ লাখ টাকা। নিট লাভ হয় ৫৫ কোটি ২৩ লাখ টাকা। গত ১৫ অক্টোবর বিএসসি পরিচালনা পর্ষদের ৩০২তম সভায় শেয়ারহোল্ডারদের জন্য ১০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশের সুপারিশ করা হয়েছে। এর আগের অর্থবছরে আয় ছিল ১২৯ কোটি ৪৪ লাখ, ব্যয় ১১৬ কোটি ৯২ লাখ এবং নিট মুনাফা ছিল ১২ কোটি ৫২ লাখ টাকা।
বিএসসির এমডি বলেন, রামপাল, পায়রা, মাতারবাড়ীতে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের জন্য কয়লা আমদানি হচ্ছে। দেশের জ্বালানি নিরাপত্তার স্বার্থে কয়লা পরিবহনে নিরবচ্ছিন্ন সাপ্লাই চেন গড়ে তোলার লক্ষ্যে ৮০ হাজার টনের ২টি মাদার বাল্ক ক্যারিয়ার এবং লাইটারিংয়ের জন্য ১০টি ১০-১৫ হাজার টন ধারণক্ষমতার বাল্ক ক্যারিয়ার ক্রয় প্রকল্প নেওয়া হয়েছে।এছাড়া ইস্টার্ন রিফাইনারির সব ক্রুড অয়েল বিএসসির নিজস্ব জাহাজে পরিবহনের জন্য ২টি ১ লাখ থেকে সোয়া লাখ টন ধারণক্ষমতার মাদার ট্যাংকার কেনার প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। বিপিসির ৩০ লাখ টন ডিজেল ও সাড়ে ৩ লাখ টন জেট ফুয়েল পরিবহনের জন্য ৮০ টন ক্ষমতার মাদার অয়েল ট্যাংকার সংগ্রহের প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে  ২০৪১ সালের মধ্যে ৬টি এলএনজি ভ্যাসেল সংগ্রহের প্রাথমিক প্রকল্প নেওয়া হয়েছে।