banner

শেষ আপডেট ৩ ডিসেম্বর ২০১৯,  ২০:৪৭  ||   শনিবার, ৭ই ডিসেম্বর ২০১৯ ইং, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

পেঁয়াজ পঁচার পর নদীতে ফেলে দেওয়া অসাধু ব্যবসায়ীদের বিচার হওয়া দরকার—বিভাগীয় কমিশনার

পেঁয়াজ পঁচার পর নদীতে ফেলে দেওয়া অসাধু ব্যবসায়ীদের বিচার হওয়া দরকার—বিভাগীয় কমিশনার

১৮ নভেম্বর ২০১৯ | ২০:৪০ |    নিজস্ব প্রতিবেদক
  • পেঁয়াজ পঁচার পর নদীতে ফেলে দেওয়া অসাধু ব্যবসায়ীদের বিচার হওয়া দরকার—বিভাগীয় কমিশনার

ক্রাইম প্রতিবেদকঃ চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার মো. আবদুল মান্নান বলেছেন, দ্রব্যমূল্যের সাথে জীবনযাত্রার সম্পর্ক অত্যন্ত নিবিড়। একটি পরিবার কিভাবে তাদের দৈনন্দিন জীবনকে নির্বাহ করবে তা নির্ভর করে তাদের আয়, চাহিদা এবং দ্রব্যমূল্যের ওপর। প্রয়োজনীয় প্রতিটি পণ্যের মূল্য সহনীয় পর্যায়ে এবং সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে থাকলে তাদের জীবন স্বস্থিতে কাটে। অন্যদিকে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য সাধারণ মানুষের আর্থিক সঙ্গতির সঙ্গে অসামাঞ্জস্য হয়ে পড়লে দরিদ্র ও মধ্যবিত্ত পরিবারে অশান্তি শুরু হয়। তাই বাজার পরিস্থিতি জনগণের ক্রয় সীমার মধ্যে রাখতে হবে বলে মন্তব্য করেন বিভাগীয় কমিশনার।আজ সোমবার চট্টগ্রাম সার্কিট হাউজে বিভাগীয় টাস্কফোর্স সভায় পেঁয়াজ, চাল ও তেলের দাম নিয়ন্ত্রনে রাখতে জেলা প্রশাসকদের উদ্দেশ্যে তিনি এসব কথা বলেন।
তিনি বলেন, সম্প্রতি পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধির হার আশংঙ্কাজনক পর্যায়ে উপনীত হওয়ায় তা বেশ আলোচিত হয়েছে। খুচরা বাজারে পেঁয়াজ ১০০ থেকে ২৪০ টাকায় পর্যন্ত বিক্রি হয়েছে।

তিনি বলেন, দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি দেশের অন্যতম সমস্যা হিসেবে আবির্ভুত হয়েছে। ন্যায়সঙ্গত মূল্য বলতে বর্তমানে কোনো নির্ভরযোগ্য সূত্র পাওয়া যায় না। রমজান মাসকে সামনে রেখে অসাধু ব্যবসায়ীরা দ্রব্যমূল্য অস্থিতিশীল করতে পারে। এবিষয়ের উপর তীক্ষ্ন নজর রাখতে হবে।

তিনি আরো বলেন, পেঁয়াজ মজুদ করে বেশি দামে বিক্রি করার উদ্দেশ্যে ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে। কিন্ত সে পেঁয়াজ পঁচার পর নদীতে ফেলে দেওয়া হয়েছে। এধরণের অসাধু ব্যবসায়ীদের বিচার হওয়া দরকার। এসময় তিনি চট্টগ্রাম জেলায় বিভিন্ন মামলার জট ও বিচারাধীন মামলা নিস্পত্তির বিষয়ে গুরুত্বারোপ করেন। এসময় অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক)শঙ্কর রঞ্জন শাহা, ডিআইজি খন্দোকার গোলাম ফারুক বিপিএম, ব্রি. জেনারেল মো. আমিরুল ইসলামসহ চট্টগ্রাম বিভাগের সকল জেলার জেলা প্রশাসকগণ উপস্থিত ছিলেন।