banner

শেষ আপডেট ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯,  ২২:১৭  ||   সোমবার, ১৬ই সেপ্টেম্বর ২০১৯ ইং, ১ আশ্বিন ১৪২৬

সেচ্ছাশ্রমে বাঁধ মেরামত সম্পন্ন, জোয়ার ঠেকাতে সক্ষম হয়েছে কুতুবদিয়া দ্বীপের দুই ইউনিয়ন

সেচ্ছাশ্রমে বাঁধ মেরামত সম্পন্ন, জোয়ার ঠেকাতে সক্ষম হয়েছে কুতুবদিয়া দ্বীপের দুই ইউনিয়ন

৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯ | ১৯:৪৪ |    নিজস্ব প্রতিবেদক
  • সেচ্ছাশ্রমে বাঁধ মেরামত সম্পন্ন, জোয়ার ঠেকাতে সক্ষম হয়েছে কুতুবদিয়া দ্বীপের দুই ইউনিয়ন

 লিটন কুতুবী, কুতুবদিয়া  : ইচ্ছা থাকলে উপায় হয়। বিগত কয়েক বছর পূর্বে ঘূর্ণিঝড় রোয়ানু ও প্রাকৃতিক দূর্যোগের আঘাতে লন্ডভন্ড হয়ে যাওয়া উপকূলের অধিকাংশ বেড়িবাঁধ ভেঙে যায়। তারই ক্ষতিগ্রস্তের মধ্যে কুতুবদিয়া দ্বীপের ৪০ কিলোমিটার বেড়িবাঁধের মধ্যে ২০ কিলোমিটার বাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তন্মধ্যে ১৪ কিলোমিটার বাঁধ সম্পূর্ণ বিলীন হয়ে যায়।
কক্সবাজার জেলার পাউবোর ৭১ পোল্ডারের কুতুবদিয়া উপকূলের ৪০ কিলোমিটার বাঁধের মধ্যে ১৪ কিলোমিটার বাঁধ সম্পূর্ণ বিলীন। তন্মধ্যে আলী আকবর ডেইল ইউনিয়নের  জেলেপাড়া, আনিচের ডেইল, পশ্চিম তাবলরচর, কাহার পাড়া, তেলিপাড়া,হকদারপাড়া, জেলেপাড়া ও বড়ঘোপ মুরালিয়া অন্যতম। এ সব বাঁধ ভাঙ্গা এলাকা দিয়ে বিগত কয়েক বছর ধরে জোয়ার ভাটা বসেছে।
সদ্য যোগদানকারী কুতুবদিয়ার ইউএনও জিয়াউল হক মীর দ্বীপের অধিকাংশ ভাঙ্গন বেড়িবাঁধ এলাকা পরিদর্শন করেন। চলতি বর্ষা মৌসুমে ফসলি জমিতে চাষাবাদ করার শুরু করার লক্ষে স্থানীয় উদ্যোগে সেচ্ছাশ্রমে জোয়ার ঠেকানোর বাঁধ মেরামতের জন্য সংশ্লিষ্ট চেয়ারম্যানদের নির্দেশ দেন।
পাউবো কর্তৃপক্ষ কয়েক বছর ধরে ভাঙ্গন বাঁধ মেরামত করার কথা বলে উপকূলের মানুষকে ধোকাঁ দিয়ে আসছে। চলতি বর্ষা মৌসুমেও একই অবস্থা। পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃপক্ষের প্রতি আস্থা হারিয়ে বড়ঘোপ ও আলী আকবর ডেইল ইউনিয়নের লোকজন ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের উদ্যোগে সেচ্ছাশ্রমে ভাঙন কবলিত এলাকায় জোয়ার ঠেকাতে বাঁধ মেরামতের কাজ শুরু করে। বড়ঘোপ আর আলী আকবর ডেইল ইউপির চেয়ারম্যানগণ।
গত (আগস্ট/১৯) মাসে আলী আকবর ডেইল ও বড়ঘোপ ইউনিয়নের প্রায় তিন কিলোমিটার ভাঙন এলাকায় জোয়ার ঠেকানোর মতো বাঁধ মেরামত কাজ সম্পন্ন করে।  সৎ ইচ্ছা থাকলে কি-না পারে ! তা দেখিয়ে দিলেন আলী আকবর ডেইল ইউপির চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুচ্ছাফা বিকম ও বড়ঘোপ ইউপির চেয়ারম্যান আ.ন.ম. শহীদ উদ্দিন ছোটন।
কুতুবদিয়া উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নাজিম উদ্দিন লালা জানান,সম্প্রতি আলী আকবর ডেইল ইউনিয়ন পরিষদের অর্থায়নে এবং এলাকাবাসীর সেচ্ছাশ্রমে গত আগস্ট মাসে আলী আকবর ডেইল ইউনিয়নের কাহারপাড়া,তেলিপাড়া, হকদারপাড়া, পশ্চিম তারলচর ভাঙন এলাকায় জিও ব্যাগে বালি ভর্তি ও মাটি ভর্তি বস্তা দিয়ে তিন’শ মিটার বাঁধ মেরামত কাজ সম্পন্ন করে। গত অমাবষ্যা ও পূর্নিমার জোয়ার ঠেকানো সম্ভব হয়েছে।
গত এক সপ্তাহ পূর্বে আলী আকবর ডেইল ইউপির চেয়ারম্যান ও ইউপির সদস্যদের নিজস্ব অর্থায়নে কুমিরারছড়া জেলেপাড়ার ১০ চেইন সম্পূর্ণ বিলীন এলাকায় বাঁশের বেড়া, খুঁটি ও বালি ভর্তি বস্তা দিয়ে জোয়ার ঠেকানো বাঁধ মেরামত করেছে। চলতি অমাবষ্যার জোয়ার ঠেকাতে সক্ষম হয়েছে বলে স্থানীয় ইউপির চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা নুরুচ্ছাফা বিকম।
তিনি আরো জানান, তিন’শ মিটার বাঁধ মেরামত করতে পরিষদের ফান্ড শেষ হয়ে যায়। কুমিরারছড়া জেলেপাড়া এলাকায় ১০ চেইল বাঁধ মেরামতে প্রায় ১২ লাখ টাকা খরচ হয়েছে। অধিকাংশ অর্থ চেয়ারম্যান নিজে এবং পরিষদের সদস্যদের থেকে নিয়ে ব্যয় করা হয়েছে।
এ দিকে বড়ঘোপ মুরালিয়া ও কুমিরারছড়া খাল এলাকা পর্যন্ত  ১৭ চেইন জোয়ার ঠেকানো বেড়িবাঁধ মেরামত কাজ সম্পন্ন করে বড়ঘোপ ইউপির চেয়ারম্যান ছোটন। আলী আকবর ডেইল ইউনিয়নের কুমিরারছড়া জেলেপাড়া এলাকায় ১০ চেইন বেড়িবাঁধ মেরামত কাজ সম্পন্ন করে আলী আকবর ডেইল ইউপির চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা নুরুচ্ছাফা। জোয়ার ঠেকানো বাঁধ দেয়ায় গত অমাবষ্যার ও পূর্ণিমার জোয়ারে ঐ এলাকার জনবসতির ঘর ভিটি ও শতশত একর ফসলি  জমি জোয়ারের নোনা জলে প্লাবিত হয়নি। আগামী আশি^ন কার্তিক মাসের জোয়ার ঠেকাতে পারলে অনাবাদি জমিতে চলতি আমন চাষ, শুস্ক মৌসুমে বোরো চাষ ও শাক সবজির চাষ হবে বলে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এডভোকেট আলহাজ ফরিদুল ইসলাম চৌধূরী জানান।