banner

শেষ আপডেট ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯,  ২২:১৭  ||   সোমবার, ১৬ই সেপ্টেম্বর ২০১৯ ইং, ১ আশ্বিন ১৪২৬

সন্ত্রাসীদের কোন জাত ও ধর্ম নেই –বীর বাহাদুর এমপি

সন্ত্রাসীদের কোন জাত ও ধর্ম নেই –বীর বাহাদুর এমপি

৩১ অগাস্ট ২০১৯ | ২০:৩২ |    নিজস্ব প্রতিবেদক
  • সন্ত্রাসীদের কোন জাত ও ধর্ম নেই –বীর বাহাদুর এমপি

বশির আহমেদ,বান্দরবান প্রতিনিধি :  পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি বলেছেন, এলাকার শান্তি,সম্প্রীতি ও বন্ধুত্ব বজায় রাখার জন্য সন্ত্রাসীদের বিষয়ে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে সঠিক তথ্য দেয়া প্রয়োজন। পাহাড়ে সন্ত্রাসীদের চাঁদাবাজির কারণে এলাকার উন্নয়ন ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে এবং সবাই মিলে সন্ত্রসীদের প্রতিহত করতে হবে। গতকল শুক্রবার সকালে বান্দরবানের রুমা উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদ মাঠে পাবত্য চট্রগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড এর গাভী বিতরন কালে তিনি এসব কথা বলেন ।
মন্ত্রী আরো বলেন, সন্ত্রাসীদের কোন জাত ও ধর্ম নেই। এলাকার উন্নয়ন চাইলে সন্ত্রাসীদের আনাগোনার তথ্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে দিতে হবে। তখনই এলাকায় শান্তি ফিরে আসবে, উন্নয়ন কাজ এগিয়ে যাবে  রুমা উপজেলায় শত কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ চলছে, আরো চলবে বলে জানান মন্ত্রী ।
এছাড়াও রুমা সদর থেকে দুর্গম এলাকায় সড়ক তৈরি করা হবে । আর সড়কের সুবাধে দুর্গম গ্রামগুলোতে শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও ব্যবসা বাণিজ্যে বড় ধরনের পরিবর্তন আসবে বলে জানান পাবত্যমন্ত্রী।
অনুষ্টানে এসময় উপস্থিত ছিলেন পুলিশ সুপার জাকির হোসেন মজুমদার, পাবত্য চট্রগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড এর সদস্য হারুনুর রশিদ. রুমা সেনা জোনের মেজর মো: জুবায়ের,পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য কাজল কান্তি দাশ, রুমা উপজেলা নিবাহী অফিসার শামসুল আলম, পার্বত্য জেলা পরিষদের সদস্য লক্ষী পদ দাশ, সদস্য মোজাম্মেল হক বাহাদুর,পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড বান্দরবান ইউনিটের নির্বাহী প্রকৌশলী আবু বিন মো: ইয়াছির আরাফাত, বান্দরবান স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি)’র নির্বাহী প্রকৌশলী নাজমুস সাদাত মো:জিল্লুর রহমান, রুমা উপজেলার চেয়ারম্যান উহ্লা চিং মামা,
পাবত্য চট্রগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড সুত্রে জানা যায়,রুমা উপজেলায় ২ কোটি ২৩ লাখ টাকার ব্যয়ে চারটি উন্নয়ন মুলক কাজের উদ্ধোধন করা হয়েছে। এবং ৫০জন নারীকে বিনামুল্যে ৫০টি গাভী বিতরন করা হয়।
এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৌশলী নাজমুস সাদাত মো:জিল্লুর রহমান জানান রুমা  উপজেলায় ৭ কোটি ৭০লাখ টাকার ব্যয়ে চারটি কাজের উদ্ধোধন এবং ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়েছে।
এছাড়া শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের ৬ কোটি ৪৫ লাখ টাকা ব্যয়ে ৬তলা বিশিষ্ট রুমা সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করা হয়েছে।