banner

শেষ আপডেট ১৮ নভেম্বর ২০১৯,  ২১:৩৭  ||   সোমবার, ১৮ই নভেম্বর ২০১৯ ইং, ৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

নগরীর সড়কজুড়ে বড় বড় গর্ত : ঘটছে দূর্ঘটনা

নগরীর সড়কজুড়ে বড় বড় গর্ত : ঘটছে দূর্ঘটনা

১৫ জুলাই ২০১৯ | ২০:৩৪ |    নিজস্ব প্রতিবেদক
  • নগরীর সড়কজুড়ে  বড় বড় গর্ত : ঘটছে দূর্ঘটনা

বিশ্বজিৎ পালঃ নগরীর সড়কজুড়ে সৃষ্টি হয়েছে বড় বড় গর্তের। টানা এক সপ্তাহের বৃষ্টি শেষে মহানগরীর প্রায় সড়কে খানাখন্দ আর গর্ত ভেসে উঠছে। এতে চলাচলরত নগরবাসীর দূর্ভোরে সীমা নেই। গর্তে পড়ে দুর্ঘটনাও ঘটছে অহরহ।আজ সোমবার বৃষ্টি না থাকায় এসব গর্ত দৃষ্টিগোচর হতে থাকে। এতে যানচলাচলও ব্যাহত হচ্ছে।এমতাবস্থায় ওয়াসার খোঁড়াখুড়ি ও নিম্মমানের কাজকে দায়ী করেছেন সংশ্লিষ্টরা।

এ বিষয়ে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের তত্ত্ববাধয়ক প্রকৌশলী সুদীপ বসাক জানান, সিটি কর্পোরেশন বৃষ্টির ভিতরও কাজ করছে। এখনো কাজ চলছে। টানা বৃষ্টিতে গর্ত আর খানাখন্দ বেশি হওয়ার কারণে এসব কাজ দেখা যাচ্ছে না। বৃষ্টি কমে এসেছে। শহরের রাস্তাগুলোকে আগামী ১০/১২ দিনের মধ্যে পুনরায় আগের জায়গায় নিয়ে আসা হবে।
আজ সোমবার সরেজমিনে দেখা গেছে, নগরীর চকবাজার, মুরাদপুর, মেরিনার্স রোড, টাইগার পাস থেকে অলংকার, বিমানবন্দর সড়ক, অক্সিজেন সড়ক, চট্টগ্রাম-হাটহাজারী রোডসহ প্রায় সকল সড়কে এ রকম বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এসব গর্তে রিকশা, সিএনজিচালিত অটোরিকশাসহ ছোট ছোট যানবাহনের চাকা ঢুকে গিয়ে দুর্ঘটনা ঘটছে। এর আগে বৃষ্টির মাঝেও কোল রেডিমিক্স নামক চায়না প্রযুক্তির একটি বিটুমিন দিয়ে নগরের কয়েকটি সড়ক সাময়িকভাবে সংস্কার করা হলেও প্রায় সড়ক এখনো ভরে আছে খানাখন্দ আর গর্তে। তার ওপর ওয়াসার খোঁড়াখুঁড়ির ক্ষত তো রয়েছেই। এতে জনসাধারণের দুর্গতি পৌঁছেছে চরমে। প্রায় সকল সড়কে খোয়া ওঠে যাওয়ার কারণে রিকশাওয়ালারা হাঁপিয়ে উঠছে। নগরীর কেবি আমান আলী রোডের ভোলা শাহ মাজার এলাকায় দেখা গেল বড় বড় গর্ত। রাহাত্তার পুল থেকে এক কিলোমিটার এলাকার দিকে কিছু জায়গায়ও এ রকম গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। গর্তে পড়ে নষ্ট হচ্ছে রিকশা, ট্যাক্সি, বাসসহ অন্যান্য গাড়ির চাকা ও যন্ত্রাংশ। এছাড়া গাড়িচালকেরা গতি কমাতে বাধ্য হচ্ছে। এতে সৃষ্টি হচ্ছে যানজট।
এদিকে ওয়াসার নতুন পাইপলাইন স্থাপন ও মেরামতের কাজ শুরু হয়েছে কয়েক বছর আগে। দীর্ঘদিন ধরে এই রাস্তা খোঁড়াখুঁড়ির কারণে জনগণের ভোগান্তি এখন চরম পর্যায়ে পৌঁছেছে। একই জায়গায় একাধিকবার খোঁড়াখুঁড়ির কারণে রাস্তারও বেহাল দশা। তার সাথে যোগ হয়েছে জলাবদ্ধতার পানি। ফলে যান চলাচলেও সৃষ্টি হয়েছে দীর্ঘসূত্রতার। ওয়াসার খোঁড়াখুঁড়ি শেষ না হওয়ায় রাস্তা তেমন মেরামত করতে পারছে না চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক)।
সরেজমিন আরো দেখা যায়, হাটহাজারী রোড (মুরাদপুর-অক্সিজেন) যেন কেউ দুমড়ে-মুচড়ে রেখে দিয়েছে। খোঁড়াখুঁড়ির কারণে রাস্তার এক পাশ, কোথাও-কোথাও উভয় পাশ যান চলাচলের অনুপযোগী হয়ে গেছে। গাড়িগুলো সঠিক গতিতে চলাচল করতে না পারায় অল্প রাস্তা পাড়ি দিতে সময় লাগছে কয়েকগুণ বেশি। এবড়ো-খেবড়ো রাস্তার কারণে প্রতিনিয়তই ঘটছে দুর্ঘটনা। পুরো নগরীতে এমন অবস্থা বিরাজ করছে। রাস্তার গাড়িচালক ও পথচারীদের সাথে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।

এ বিষয়ে চট্টগ্রাম ওয়াসার প্রকল্প পরিচালক (পিডি) প্রকৌশলী নুরল আবছারের মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি।