banner

শেষ আপডেট ২০ অক্টোবর ২০১৯,  ২১:১৬  ||   রবিবার, ২০ই অক্টোবর ২০১৯ ইং, ৫ কার্তিক ১৪২৬

নবীন-প্রবীণের সমন্বয়ে নির্বাচিত চিটাগাং চেম্বার সাধারণ সদস্যদের প্রত্যাশা পূরণ করা সম্ভব–এম. এ. লতিফ

নবীন-প্রবীণের সমন্বয়ে নির্বাচিত চিটাগাং চেম্বার সাধারণ সদস্যদের প্রত্যাশা পূরণ করা সম্ভব–এম. এ. লতিফ

৩০ জুন ২০১৯ | ২০:২১ |    নিজস্ব প্রতিবেদক
  • নবীন-প্রবীণের সমন্বয়ে নির্বাচিত চিটাগাং চেম্বার সাধারণ সদস্যদের প্রত্যাশা পূরণ করা সম্ভব–এম. এ. লতিফ

ক্রাইম প্রতিবেদকঃ দি চিটাগাং চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি’র ২০১৯-২০২০ ও ২০২০-২০২১ মেয়াদের জন্য নবনির্বাচিত পরিচালকমন্ডলী আজ ৩০ জুন রবিবার সকালে ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারস্থ বঙ্গবন্ধু কনফারেন্স হলে এক অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে দায়িত্বভার গ্রহণ করেন।

 অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বন্দর-পতেঙ্গা (চট্টগ্রাম-১১) আসনের সংসদ সদস্য এম. এ. লতিফ।

চেম্বারের ৪র্থ বারের মত নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট মাহবুবুল আলম’র সভাপতিত্বে বর্তমান বোর্ডের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোঃ নুরুন নেওয়াজ সেলিম ও সহ-সভাপতি সৈয়দ জামাল আহমেদ, নবনির্বাচিত সিনিয়র সহ-সভাপতি ওমর হাজ্জাজ ও সহ-সভাপতি তরফদার মোঃ রুহুল আমিন, বর্তমান পরিচালক এ. কে. এম. আক্তার হোসেন, কামাল মোস্তফা চৌধুরী, জহিরুল ইসলাম চৌধুরী (আলমগীর), মোঃ অহীদ সিরাজ চৌধুরী (স্বপন), মোঃ জহুরুল আলম, ছৈয়দ ছগীর আহমদ, সরওয়ার হাসান জামিল, মোঃ রকিবুর রহমান (টুটুল), হাসনাত মোঃ আবু ওবাইদা, মোঃ শাহরিয়ার জাহান, মুজিবুর রহমান, মোঃ আবদুল মান্নান সোহেল এবং নবনির্বাচিত পরিচালক বেনাজির চৌধুরী নিশান, মোঃ এম. মহিউদ্দিন চৌধুরী, নাজমুল করিম চৌধুরী শারুন, সৈয়দ মোহাম্মদ তানভীর, সালমান হাবীব, সাকিফ আহমেদ সালাম ও শাহজাদা মোঃ ফৌজুল আলেফ খান বক্তব্য রাখেন।

প্রধান অতিথি এম. এ. লতিফ এমপি বলেন, বর্তমান বিশ্বে তরুণরাই নেতৃত্ব দিচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা নবীনদের প্রাধান্য দিয়ে মন্ত্রী সভা গঠন করেছেন। তাঁর এ দৃষ্টান্তে অনুপ্রাণিত হয়ে চট্টগ্রামের বনেদী ব্যবসায়ী পরিবারের তরুণ সদস্যদের নিয়ে নবীন-প্রবীণের সমন্বয়ে নির্বাচিত চিটাগাং চেম্বার পরিচালকমন্ডলীর পক্ষে সাধারণ সদস্যদের প্রত্যাশা পূরণ করা সম্ভব হবে বলে তিনি মনে করেন।

ভৌগোলিক অবস্থানগত কারণে দেশের অর্থনীতিতে চিটাগাং চেম্বারের অবদান সর্বাধিক এবং স্বতন্ত্র। চট্টগ্রামের ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ অত্যন্ত সৌহার্দ্যপূর্ণভাবে যুগ যুগ ধরে এ প্রতিষ্ঠানের নেতৃত্ব দিয়ে আসছে। অতীত নেতৃবৃন্দের অবদানের ফলে চেম্বার আজ দেশের অন্যতম অগ্রগণ্য ব্যবসায়ী সংগঠন। দেশের ব্যবসা-বাণিজ্যে যে কোন সমস্যা সমাধানে কার্যকর প্ল্যাটফর্ম এই চেম্বার। তিনি জাতীয় স্বপ্ন বাস্তবায়নে সম্মিলিতভাবে কাজ করার পাশাপাশি দেশ ও দশের কল্যাণে নিজেদের উৎসর্গ করার জন্য নবনির্বাচিত পরিচালকদের প্রতি আহবান জানান।
সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, চট্টগ্রামের বাণিজ্যিক ঐতিহ্য হাজার বছরের। বাণিজ্য সংগঠন হিসেবে চিটাগাং চেম্বারের পথচলা শত বছরের। সেই ঐতিহ্যের সাথে সামঞ্জস্য রেখে আগামী দিনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় চেম্বারকে অধিকতর কার্যকর করার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন চেম্বার সভাপতি।

বন্দর কেন্দ্রিক আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য, জাতীয় বাজেট প্রণয়নসহ সময় সময় উত্থাপিত যে কোন সমস্যা সমাধানে এ চেম্বার কার্যকর ভূমিকা পালন করে থাকে। নবনির্বাচিত পরিচালকমন্ডলীর সহায়তায় এ ধারা অব্যাহত থাকবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন। চেম্বারের এই নেতৃত্বে সাধারণ সদস্যদের জন্য বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপন, ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টার ক্লাব এবং সেন্টার অব এক্স্যালেন্স চালু করার ঘোষণা দেন চেম্বার সভাপতি মাহবুবুল আলম।
সিনিয়র সহ-সভাপতি মোঃ নুরুন নেওয়াজ সেলিম বলেন, দেশের অর্থনীতির যে কোন বিষয়ে বলিষ্ঠ ভূমিকার কারণে জাতীয় ক্ষেত্রে চিটাগাং চেম্বারের আলাদা একটি ইমেজ রয়েছে। তিনি নতুন নেতৃত্ব এই ইমেজ আরো বৃদ্ধি করতে সফল হবেন বলে মনে করেন।

সহ-সভাপতি সৈয়দ জামাল আহমেদ নবনির্বাচিত পরিচালকদের স্বাগতঃ জানিয়ে চিটাগাং চেম্বারের উত্তরোত্তর সাফল্য অর্জিত হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করে তাঁর পক্ষ থেকে সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন।
নবনির্বাচিত সিনিয়র সহ-সভাপতি ওমর হাজ্জাজ বলেন, ঐতিহ্যবাহী এ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে দেশের ব্যবসা-বাণিজ্যের আধুনিকায়নে কাজ করার অনেক সুযোগ রয়েছে। অত্র চেম্বার ভবিষ্যতে ব্যবসায়ীদের জন্য নতুন নতুন অনেক সুযোগ-সুবিধা সৃষ্টি করতে পারবে। নবনির্বাচিত সহ-সভাপতি তরফদার মোঃ রুহুল আমিন বলেন, বিবিআইএন, চীনের ওয়ান বেল্ট ওয়ান রোড, বিসিআইএম ইত্যাদি আঞ্চলিক ফোরামের জন্য চট্টগ্রাম অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তাই এসব ক্ষেত্রে চেম্বারের অবদান রাখার সুযোগ রয়েছে।

অনুষ্ঠান শেষে বিদায়ী পরিচালকদের সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করেন ও নতুনদের ফুল দিয়ে বরণ করেন প্রধান অতিথি এম. এ. লতিফ এমপি।