banner

শেষ আপডেট ১৭ জুলাই ২০১৯,  ১০:৩৪  ||   বুধবার, ১৭ই জুলাই ২০১৯ ইং, ২ শ্রাবণ ১৪২৬

আমার মেয়ের ‘মেডিকেল মার্ডারের’ বিচারের জন্য আর প্রমাণের প্রয়োজন আছে?–সাংবাদিক রুবেল খান

আমার মেয়ের ‘মেডিকেল মার্ডারের’ বিচারের জন্য আর প্রমাণের প্রয়োজন আছে?–সাংবাদিক রুবেল খান

২৮ জুন ২০১৯ | ২৩:১০ |    নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আমার মেয়ের ‘মেডিকেল মার্ডারের’ বিচারের জন্য আর প্রমাণের প্রয়োজন আছে?–সাংবাদিক রুবেল খান

শিশু রাইফা খানের মৃত্যুর ঘটনায় বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল (বিএমডিসি) কর্তৃক গঠিত তদন্ত কমিটি অভিযুক্ত চিকিৎসকের পক্ষ নিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন রাইফার বাবা সাংবাদিক রুবেল খান।আজ ২৮ জুন শুক্রবার চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে রাইফার প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করেন।

গত বছরের ২৯ জুন রাতে নগরের বেসরকারি ম্যাক্স হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করে আড়াই বছরের শিশু রাইফা। তার পরিবারের অভিযোগ, ম্যাক্স হাসপাতালের অব্যবস্থাপনা, দায়িত্বরত চিকিৎসকের অবহেলা এবং ভুল চিকিৎসার কারণেই রাইফার অকাল মৃত্যু হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে রুবেল খান বলেন, চিকিৎসকের অবহেলা এবং ভুল চিকিৎসায় রাইফার মৃত্যুর পর ঘটনা তদন্তে বিএমডিসি কর্তৃক গঠিত কমিটিকে আমি সাধুবাদ জানাই। কিন্তু তারা আমার কোনো বক্তব্য না নিয়ে কৌশলে ত্রুটিপূর্ণ ম্যাক্স হাসপাতাল এবং অভিযুক্ত চিকিৎসকের পক্ষ নিয়ে অসম্পূর্ণ প্রতিবেদন আদালতে জমা দিয়েছে।

 

তিনি বলেন, ভিকটিমের বাবা এবং এ ঘটনায় চকবাজার থানায় দায়েরকৃত মামলার বাদি হিসেবে আমার বক্তব্য না নিয়েই প্রতিবেদন জমা দেওয়ায়, বিএমডিসির প্রতিবেদনটি যাতে আদালতের নথিভুক্ত করা না হয়, সে জন্য সিএমএম আদালতে আবেদন জানিয়েছি। একই সঙ্গে পূর্ণাঙ্গ এবং নিরপেক্ষ তদন্ত করে পুনরায় প্রতিবেদন দেয়ার জন্য আদালতের নির্দেশনা চেয়েছি।

রুবেল খান বলেন, আমি জানি আমার মেয়ে আর ফিরে আসবে না। তবে অভিযুক্ত চিকিৎসকের শাস্তি হলে দেশের চিকিৎসা ব্যবস্থার প্রতি মানুষের আস্থা বাড়বে। চিকিৎসা সেবায় আমূল পরিবর্তন আসবে। সবাই জবাবদিহিতার মধ্যে থাকবে। সরকারের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হবে। চিকিৎসার জন্য কেউ দেশের বাইরে যাবে না। দেশের টাকা দেশেই থাকবে।

তিনি বলেন, দেশব্যাপী আলোড়ন সৃষ্টি করা রাইফার মৃত্যুর এক বছর পার হতে চললেও চিকিৎসকের অবহেলা কিংবা ভুলে মানুষের মৃত্যু কমেনি। বরং বেড়েছে। এ জন্য চিকিৎসা খাতে শৃঙ্খলা প্রয়োজন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কঠোর হস্তক্ষেপ প্রয়োজন। তবেই রাইফার মতো কেউ অকালে ঝরে যাবে না। কোনো নিষ্পাপ শিশু কিংবা মানুষের মৃত্যু হবে না।

রুবেল খান বলেন, অপরাধী কারও ভাই কিংবা বন্ধু হতে পারে না। অপরাধীর পরিচয় কেবল অপরাধী হিসেবেই বিবেচনা করতে হবে। একজন চিকিৎসক অপরাধ করলে তাকেও অপরাধী হিসেবে বিবেচনা করতে হবে। কাউকে আইনের ঊর্ধ্বে ভাবার সুযোগ নেই। চিকিৎসকের অবহেলা এবং ভুল চিকিৎসায় যদি কারও মৃত্যু হয়, এতে দায়ি চিকিৎসকের যদি শাস্তি না হয়- তবে দেশের চিকিৎসা ব্যবস্থায় সংকট তৈরি হবে।

তিনি বলেন, চট্টগ্রামের সিভিল সার্জনের নেতৃত্বে গঠিত তদন্ত কমিটি তাদের প্রতিবেদনে অভিযুক্ত চিকিৎসকের অবহেলার প্রমাণ পেয়েছে বলে উল্লেখ করেছে। স্বাস্থ্য অধিদফতরের তদন্ত কমিটি তাদের প্রতিবেদনে ম্যাক্স হাসপাতালে ১১টি ত্রুটি পেয়েছে বলে উল্লেখ করেছে। ওই হাসপাতালের বিভিন্ন অনিয়মের প্রমাণ পেয়ে র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা করেছে। এর পরেও আমার মেয়ের ‘মেডিকেল মার্ডারের’ বিচারের জন্য আর প্রমাণের প্রয়োজন আছে?

সংবাদ সম্মেলেনে বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন রাইফার বাবা মো. রুবেল খান, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি নাজিমুদ্দীন শ্যামল এবং সাধারণ সম্পাদক হাসান ফেরদৌস।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, যুগ্ম মহাসচিব মহসিন কাজী, চট্টগ্রাম সাংবাদিক হাউজিং কো-অপারেটিভ সোসাইটির সভাপতি স্বপন কুমার মল্লিক, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি মোহাম্মদ আলী, যুগ্ম সম্পাদক সবুর শুভ, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আহমেদ কুতুব এবং নির্বাহী সদস্য উত্তম সেন গুপ্ত।

কাল প্রেসক্লাবের সামনে সমাবেশ

চিকিৎসকের অবহেলা ও ভুল চিকিৎসায় সাংবাদিক রুবেল খানের কন্যা রাইফা খানের মৃত্যুর ঘটনায় বিএমডিসির দেওয়া তদন্ত প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করেছে চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন-সিইউজে। শুক্রবার (২৮ জুন) চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে রাইফার প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তদন্ত প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যানের ঘোষণা দেন সিইউজে সভাপতি নাজিমুদ্দীন শ্যামল এবং সাধারণ সম্পাদক হাসান ফেরদৌস। এ সময় সাংবাদিক নেতারা রাইফা ‘হত্যাকারী’ চার চিকিৎসকের বিচারের দাবিতে কাল শনিবার (২৯ জুন) সকাল ১১টায় চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সামনে সাংবাদিক-জনতা সমাবেশ কর্মসূচির ঘোষণা দেন।