banner

শেষ আপডেট ১৭ জুলাই ২০১৯,  ১০:৩৪  ||   বুধবার, ১৭ই জুলাই ২০১৯ ইং, ২ শ্রাবণ ১৪২৬

বক্সিরহাট ওয়ার্ড শ্রমিক লীগের উদ্যোগে মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, দুর্নীতি ও চাঁদাবাজ বিরোধী মানববন্ধন

বক্সিরহাট ওয়ার্ড শ্রমিক লীগের উদ্যোগে মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, দুর্নীতি ও চাঁদাবাজ বিরোধী মানববন্ধন

১৪ জুন ২০১৯ | ১৯:২৮ |    নিজস্ব প্রতিবেদক
  • বক্সিরহাট ওয়ার্ড শ্রমিক লীগের উদ্যোগে মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, দুর্নীতি ও চাঁদাবাজ বিরোধী মানববন্ধন

প্রেস বিজ্ঞপ্তিঃ আজ ১৪ জুন  শুক্রবার বিকাল ৩টায় নগরীর বাকলিয়া থানাধীন চাক্তাই নতুন ব্রীজস্থ শহীদ বশরুজ্জামান চত্বরে জাতীয় শ্রমিক লীগ ৩৫নং বক্সিরহাট ওয়ার্ড শাখার সভাপতি ওমর মিয়া সর্দ্দারের সভাপতিত্বে সাধারণ সম্পাদক মো: ইউছুফের সঞ্চালনায় মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, দুর্নীতি, চাঁদাবাজি, জুয়া সহ সকল অসামাজিক কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে এক মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

উক্ত মানববন্ধনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় শ্রমিক লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মহানগর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা আলহাজ্ব মুহাম্মদ শফর আলী।

প্রধান বক্তা ছিলেন ৩৫নং বক্সিরহাট ওয়ার্ড কাউন্সিলর মহানগর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা হাজী নুরুল হক।

বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম, কোতোয়ালী থানা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব জাহাঙ্গীর আলম, বক্সিরহাট ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক লিটন রায় চৌধুরী, জাতীয় শ্রমিক লীগ বাকলিয়া শাখার সভাপতি উজ্জ্বল বিশ্বাস, পণ্য পরিবহন মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো: দুুলাল, চট্টগ্রাম দোকান কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি মো: আলমগীর, সাবেক ছাত্রনেতা এস.এম. মামুনুর রশিদ, নগর শ্রমিক লীগ নেতা নজরুল ইসলাম খোকন, মো: ওসমান গণি, মো: ইসমাইল, মো: মনির হোসেন, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা আজিজুল ইসলাম, যুবলীগ নেতা এস.এম. আব্বাস উদ্দিন, বাকলিয়া থানা হকার লীগের সহ-সভাপতি রাসেল দাশ, সাধারণ সম্পাদক আবদুল সালাম, বাকলিয়া থানা মৎস্য শিকারী জেলে শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি ইদ্রিস মোল্লা, সাধারণ সম্পাদক আহমেদ উল্লাহ কালুসহ উপস্থিত ছিলেন জাতীয় শ্রমিক লীগ বক্সিরহাট ওয়ার্ড শাখার সভাপতি ও সম্পাদকশন্ডলীর সদস্যবৃন্দরা।

বক্তারা বলেন, বাণিজ্যিক রাজধানী চট্টগ্রামের ঐতিহাসিক প্রধান পাইকারী বাজার চাক্তাই খাতুনগঞ্জ সংযুক্ত ৩৫নং বক্সিরহাট ওয়ার্ড।

এ এলাকায় বন্দরের পর দ্বিতীয় শ্রমিক অধ্যুষিত জনবহুল এলাকা হওয়ায় বস্তি কেন্দ্রিক কতিপয় নেতা নামধারী ব্যক্তির ইন্ধনে স্থানীয় প্রশাসনের অসাধু কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় মাদক, চাঁদাবাজি, সন্ত্রাস, জুয়াসহ অসামাজিক কর্মকান্ডের ভয়াবহতায় জিম্মি হয়ে আছে অত্র এলাকার ব্যবসায়ী, শ্রমিক ও বসবাসকারী সাধারণ মানুষ। অপ্রিয় হলেও সত্য যে ২০১৪ নির্বাচন পরবর্তী সময়ে যারা সরকার বিরোধী আন্দোলনের নামে রাজপথে পেট্রোল বোমা মেরে মানুষ হত্যা করে নৈরাজ্যকর পরিস্থিতির সৃষ্টি করতে সক্রিয় অংশগ্রহণকারী কর্মীরাই বাকলিয়া থানা প্রশাসনের সোর্স হিসেবে কর্মের সুবাদে তারাই মাদক ব্যবসা, জুয়া, হকার, সড়ক পরিবহনের চাঁদাবাজি ও রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে অত্র এলাকায় বস্তি কেন্দ্রিক আস্তানা গড়ে তুলেছে যাহা রাষ্ট্রের জন্য মারাত্মক হুমকি। বক্তারা আরো বলেন, অনতিবিলম্বে মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, চাঁদাবাজ, দুর্নীতি ও জুয়াসহ সকল প্রকার অসামাজিক কর্মকা- প্রতিরোধে সমাজের সকল স্তরের মানুষের মাঝে জনসচেতনতা ও থানা প্রশাসনের দায়িত্বশীল ভূমিকার মাধ্যমে অত্র এলাকায় পরিবার কেন্দ্রিক পেশাদার, মাদক, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজ, জুয়াসহ সকল প্রকার অসামাজিক কর্মকা- পরিচালনাকারীদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানান।