banner

শেষ আপডেট ২০ অগাস্ট ২০১৯,  ২১:৩৬  ||   বুধবার, ২১ই আগষ্ট ২০১৯ ইং, ৬ ভাদ্র ১৪২৬

দেশনেত্রীর মুক্তির মাধ্যমে দেশে গণতন্ত্র, ভোটধিকার ও আইনের শাসন ফিরিয়ে আনা হবে–আমির খসরু

দেশনেত্রীর মুক্তির মাধ্যমে দেশে গণতন্ত্র, ভোটধিকার ও আইনের শাসন ফিরিয়ে আনা হবে–আমির খসরু

২৯ মে ২০১৯ | ২১:৫৩ |    নিজস্ব প্রতিবেদক
  • দেশনেত্রীর মুক্তির মাধ্যমে দেশে গণতন্ত্র, ভোটধিকার ও আইনের শাসন ফিরিয়ে আনা হবে–আমির খসরু

 ক্রাইম প্রতিবেদক ঃ বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, এখন আমরা আর বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি চাইব না, বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে আনবোই।তিনি আজ ২৯ মে বুধবার বিকালে রীমা কমিউনিটি কনভেনশন হলে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়ার শাহাদাৎ বার্ষিকী উপলক্ষে চট্টগ্রাম মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দল আয়োজিত আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত বক্তব্য রাখেন।

দেশনেত্রীর মুক্তির মাধ্যমে দেশে গণতন্ত্র, জনগণের ভোটধিকার ও আইনের শাসন ফিরিয়ে আনা হবে। চট্টগ্রামের আন্দোলন সংগ্রামের যে ইতিহাস তা অক্ষুন্ন রেখে চট্টগ্রাম থেকেই দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্ত করার আন্দোলন শুরু হবে।
 তিনি বলেন, স্বেচ্ছাসেবক দলকে তৃণমূল থেকে সংগঠিত করে কমিটি করতে হবে। যাতে আন্দোলন সংগ্রামে অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে পারে। দেশনেত্রীর মুক্তির আন্দোলন ও গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনার আন্দোলনে সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে সংগঠিত হতে হবে। ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মাধ্যমেই বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি নিশ্চিত করতে হবে।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন বলেন, সকলের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মাধ্যমে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা সম্ভব। এ আন্দোলনে সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ছাড়া দেশে গণতন্ত্র ফিরে আসবে না।
বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো বক্তব্য রাখেন দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতি জাফরুল ইসলাম চৌধুরী, মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবুল হাসেম বক্কর।

আবুল হাসেম বক্কর বলেন, জনগণের আন্দোলনের মাধ্যমে বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা হবে।

প্রধান বক্তার বক্তব্যে কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু বলেন, আমাদের এ সংগ্রাম শুধুমাত্র দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির নয়, দেশের গণতন্ত্র রক্ষার, স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষার। এ চট্টগ্রাম থেকে একদিন শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ডাকে সারা দেশের মানুষ স্বাধীনতা সংগ্রামে জেগে উঠেছিল আর এ চট্টগ্রাম থেকেই দেশনেত্রীর মুক্তির আন্দোলনের সারা দেশের মানুষ জেগে উঠবে।

বিশেষ বক্তার বক্তব্যে কেন্দ্রীয় স্বোচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদের ভূঁইয়া জুয়েল বলেন, চট্টগ্রামের মানুষের সাথে জিয়াউর রহমানের নিবিড় সম্পর্ক। চট্টগ্রাম থেকেই তিনি স্বাধীনতার ডাক দিয়েছিলেন, যুদ্ধ করে ছিলেন। এবারাই চট্টগ্রাম থেকে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন শুরু হবে।

বিশেষ বক্তা হিসেব বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আবু সুফিয়ান।

অতিথি হিসেব বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় বিএনপির সদস্য ব্যরিষ্টার মীর হেলাল উদ্দিন, স্বোচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পদাক ইয়াছিন আলী।

চট্টগ্রাম মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি এইচ এম রাশেদ খানের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক বেলায়েত হোসেন ভুলুর সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক একরামুল করিম, বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সদস্য সিনিয়র আইনজীবি এড. দেলোয়ার হোসেন চৌধুরী, মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি নাজিমুর রহমান, শফিকুর রহমান স্বপন, মহানগর বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক শাহ আলম, ইয়াছিন চৌধুরী লিটন, আবদুল মান্নান, আনোয়ার হোসেন লিপু, দক্ষিণ জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি এনামুল হক, বিএনপি নেতা ইঞ্জিনিয়ার বেলায়েত হোসেন, মহাসগর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুল ইসলাম, মহানগর মহিলা দলের সভাপতি কাউন্সিলর মনোয়ার বেগম মনি, সাধারণ সম্পাদক জেলী চৌধুরী, উত্তর জেলা স্বেচ্ছাসেবক দল সভাপতি মো. মোরসালিন, দক্ষিণ জেলা স্বোচ্ছাসেবক দল সভাপতি সাইফুদ্দিন সালাম মিঠু, রাঙামাটি জেলা সভাপতি জাহাঙ্গির হোসেন, উত্তর জেলা সাধারণ সম্পাদক সরওয়ার উদ্দিন সেলিম, দক্ষিণ জেলা সধারণ সম্পাদক মনজুর আলম, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সিনিয়র সহসভাপতি তফাজ্জল হোসেন, সহসভাপতি আসাদুজ্জামান দিদার, সাংগঠনিক সম্পাদক জিয়াউর রহমান জিয়া, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক আলী মর্তুজা খান, যুগ্ম সম্পাদক জমির উদ্দিন নাহিদসহ প্রমুখ।