banner

শেষ আপডেট ১৭ জুলাই ২০১৯,  ২১:১৯  ||   বৃহষ্পতিবার, ১৮ই জুলাই ২০১৯ ইং, ৩ শ্রাবণ ১৪২৬

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন চেম্বার অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি’র ভোগ্য পণ্য বিক্রয় কার্যক্রম শুরু

চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন চেম্বার অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি’র ভোগ্য পণ্য বিক্রয় কার্যক্রম শুরু

১৬ মে ২০১৯ | ২১:৩০ |    নিজস্ব প্রতিবেদক
  • চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন চেম্বার অফ কমার্স এন্ড  ইন্ডাস্ট্রি’র ভোগ্য পণ্য বিক্রয় কার্যক্রম শুরু

ক্রাইম প্রতিবেদকঃ পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন চেম্বার অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি এর উদ্যোগে গরীব ও দুস্থ মানুষের জন্য ভর্তুকি মূল্যে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন চেম্বার এর সম্মুখে ভোগ্য পণ্য বিক্রয় কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয়। আজ ১৬ মে বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টায় বিক্রয় কার্যক্রম অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র  আ.জ.ম নাছির উদ্দীন। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন চেম্বার অফ কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি’র সভাপতি খলিলুর রহমান, ভাইস প্রেসিডেন্ট এ.এম. মাহবুব চৌধুরী, পরিচালক লিয়াকত আলী চৌধুরী,  মো: জসিম উদ্দিন চৌধুরী এবং ২১ নং জামালখান ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন সহ গণমান্য ব্যক্তিবর্গ।

খলিলুর রহমান তার স্বাগত বক্তব্যে বলেন, সিএমসিসিআই একটি বাণিজ্যিক সংগঠন হিসাবে সামাজিক দায়বদ্ধতার প্রশ্নে সমাজের ভালমন্দ বিষয়ে দেখার দায়িত্ব রয়েছে। পবিত্র রমজানে সাধারন মানুষের জন্য প্রতিবছরের মতো এবারও ভর্তুকি মূল্যের বিক্রয়কেন্দ্র চালু করতে যাচ্ছি বিধায় মহান আল্লার নিকট শুকরিয়া জানাই।
মেয়র বলেন, নিম্নআয়ের মানুষের সুবিধার্থে প্রতি রমজানে এ ধরনের মহতী কাজের আয়োজন করায় মেট্রোপলিটন চেম্বারকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

তিনি আরও বলেন , এ কার্যক্রম আগামীতে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন চেম্বার অব্যাহত রাখবেন এ প্রত্যাশা করে উপস্থিত সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

পরিচালক জনাব জসিম উদ্দিন চৌধুরী তার বক্তব্যে বলেন , সিএমসিসিআই তার প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই এ ধরনের কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছে। ভবিভষ্যতেও যেন এ ধরনের আরও সেবামূলক কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে পারেন তার জন্য সকলের দোয়া এবং সহযোগিতা প্রত্যাশা করেন।

সমাপনী বক্তব্যে  এ.এম. মাহবুব চৌধুরী উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে বিক্রয় কার্যক্রম সুষ্ঠভাবে পরিচালনায় সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।

বিক্রয় কেন্দ্রে চাউলের মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে প্রতি কেজি ২৫ টাকা, চিনি প্রতি কেজি ৪০ টাকা এবং ভোজ্য তেল প্রতি বোতল (১ লিটার) ৭০ টাকা ।

জনপ্রতি ২ কেজি চিনি, ৫ কেজি চাউল এবং প্রতি বোতল (১ লিটার) সয়াবিন তেল নির্ধারন করা হয়।