banner

শেষ আপডেট ২৬ অগাস্ট ২০১৯,  ১০:৪৮  ||   সোমবার, ২৬ই আগষ্ট ২০১৯ ইং, ১১ ভাদ্র ১৪২৬

সব্যসাচী লেখককে সৈয়দ শামসুল হককে উৎসর্গ: মীরসরাইয়ে আন্তর্জাতিক কবি সমাবেশ সম্পন্ন

সব্যসাচী লেখককে সৈয়দ শামসুল হককে উৎসর্গ: মীরসরাইয়ে আন্তর্জাতিক কবি সমাবেশ সম্পন্ন

৬ এপ্রিল ২০১৯ | ২০:৪২ |    নিজস্ব প্রতিবেদক
  • সব্যসাচী লেখককে সৈয়দ শামসুল হককে উৎসর্গ:  মীরসরাইয়ে আন্তর্জাতিক কবি সমাবেশ সম্পন্ন

 

 

 ক্রাইম প্রতিবেদকঃ বর্ণাঢ্য আয়োজনে চট্টগ্রামের মীরসরাইয়ে সস্পন্ন হলো আন্তর্জাতিক কবি সমাবেশ। স্থানীয় পাক্ষিক খবরিকার ২০ বর্ষপূর্তি উপলক্ষে উক্ত আয়োজনকে উৎসর্গ করা হয় সব্যসাচি লেখক কবি সৈয়দ শামসুল হককে। গত ৫ এপ্রিল শুক্রবার বিকাল ৩টায় উক্ত আন্তর্জাতিক সমাবেশ এর মূল পর্বের উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি সৈয়দ শামসুল হক এর সহধর্মিনী একুশে ও বাংলা একাডেমী পদক প্রাপ্ত কথা সাহিত্যিক আনোয়ারা সৈয়দ হক।

সকালের আঞ্চলিক কবিদের কবিতা পাঠের আসরের প্রথম পর্বের প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলা একাডেমী পদক প্রাপ্ত কিংবদন্তির ছড়াকার রফিকুল ইসলাম দাদু ভাই।

উক্ত পর্বের উদ্বোধন করবেন চট্টগ্রামের কবি শেলিনা শেলী। জাতীয় সংগীত ‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি’, ‘ ভারতীয় জাতীয় সংগীত জনমন অধিনায়ক ভারত ভাগ্য বিধাতা’ ও প্রদীপ প্রজ্বলনের মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হয় উক্ত আন্তর্জাতিক কবি সমাবেশ এর।

এরপরই বাংলাদেশ ও ভারতের জাতীয় পতাকাবাহী ষ্টিক দিয়ে ‘উই সেল ওভার কাম’ এর সাথে নৃত্য পরিবেশন করে শিল্পকলা একাডেমীর শিশু শিল্পীরা।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথী হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দেশ বরেণ্য স্বাধীন বাংলার কন্ঠ শিল্পী কল্যানী ঘোষ, বরেণ্য কন্ঠশিল্পী জীনাত রেহানা, মীরসরাই উপজেলা চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন, চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের সদস্য শেখ আতাউর রহমান।

অনুষ্ঠানের প্রথম পর্বের সভাপতিত্ব করেন কামরুল ইসলাম চৌধুরী, দ্বিতীয় পর্বের সভাপতিত্ব করেন কথাসাহিত্যিক ও মহাকবি কাইয়ুম নিজামী। সঞ্চালনা করেন মাহবুব পলাশ।

অনুষ্ঠানে ভারতীয় কবি লেখকগনের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ভারতের ঝাড়খন্ডের রবীন্দ্র গবেষক ড. ছায়া গুহ, ভারতের বেনারসের রবীন্দ্র গবেষক ড. মুরারী সেন গুপ্ত, কলকাতা প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের ড. সন্দীপ কুমার মন্ডল, রবীন্দ্র গবেষক ড. মৌ ভট্রাচার্য, মুম্বাই থেকে আগত কবি গল্পকার সুমনা রায়, কলকাতার নজরুল সংগীত শিল্পী শীলা পাল, সাঁওতালী সঙ্গিত শিল্পী জয়ন্তি সৌরেন, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের রবীন্দ্র গবেষনার শিক্ষানবীশ গবেষক কবি সুমিতা ভট্রাচার্য্য, মুরারী সেন গুপ্ত ও যৌগেশ বর্মন প্রমুখ। বিশেষ ভাবে সংবর্ধিত হন চট্টগ্রামের ও ছড়াকার শহিদুল্লাহ শাহরিয়ার, চট্টগ্রামের নাট্যজন শেখ শওকত ইকবাল চৌধুরী, বাংলাদেশ কবি সংসদ এর সাধারন সম্পাদক তৌহিদুল ইসলাম কনক, কবি ফাতেমা হক, কবি আরিফ চৌধুরী, চট্টগ্রামের কবি নীলিমা শামীম, কবি মাহমুদ নজরুল, রংপুর থেকে আসা কবি সাথী বেগম, রাঙ্গুনিয়া থেকে আসা কবি পারভিন আহমেদ, সাংবাদিক ফোরকান আবু, আনোয়ারুল হক নিজামী, মুক্তিযোদ্ধা ডেপুটি কমান্ডার আবুল হাশেম প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে চট্টগ্রামের আঞ্চলিক গানের কিংবদন্তি ও কল্যানী ঘোষের কন্ঠে ‘ওরে সাম্পান ওয়ালা’ ‘ যদি সুন্দর একখান মন পাইতাম’ সহ কয়েকটি গান সবাইকে প্রাণবন্ত করে তুলে। আবার ‘সাগরের তীর থেকে’ সেই বিখ্যাত গানের বরেণ্য শিল্পী জীনাত রেহানা ও কয়েকটি গান উপহার দিয়ে বিমোহিত করেন সবাইকে। হিন্দি ও ইংরেজী রবীন্দ্র সংগীত পরিবেশন করেন কলকাতার অতিথী ড. মৌ ভট্টাচার্য। দিনাজপুরের আঞ্চলিক ভাষার গান শোনান ড. ঝুমুর সেন গুপ্ত।

ভুপেনা হাজারিকার ‘ বিস্তীর্ণ দুপারে অসংখ্য মানুষের হাহাকার শুনি নিংশব্দে নীরবে’ শোনায় ভারতের সুমিতা ভট্টাচার্য্য। শীলা পাল পরিবেশন করে পারদেশী মেঘ যাওরে।

অনুষ্ঠানে কবিতা পাঠ করে শোনান পার্বত্য জেলা থেকে আগত বাংলা একাডেমী পদকপ্রাপ্ত প্রভাংশু ত্রিপুরা, একুশে পদকপ্রাপ্দ মংছেনচীং মংছীন ও শোভা রাণী ত্রিপুরা। চাকমা ভাষায় কবিতা আবৃত্তি করেন আলোময় চাকমা, জ্ঞানপ্রিয় চাকমা ও মায়া চাকমা। উর্দুভাষায় স্বরচিত কবিতা আবৃত্তি করেন মাজহারুল হক, আরবী ভাষায় কবিতা আবৃত্তি করেন মোঃ সাইফুল ইসলাম, উর্দু ভাষায় আশরাফুল ইসলাম।

শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন দৈনিক আজাদীর ফিচার এডিটর প্রদীপ দেওয়ানজী, দৈনিক যুগান্তরের সিনিয়র সহ সম্পাদক হিমেল চৌধুরী, রাশেদা আক্তার মুন্নি, এনায়েত হোসেন নয়ন, ইঞ্জিনিয়ার আশরাফ উদ্দিন প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মীরসরাই পৌরসভার মেয়র গিয়াস উদ্দিন, সাবেক মেয়র এম শাহজাহান, জয়নাল হোসাইন, হাফেজ শহিদুল্লাহ মিয়াজী, কবি দেবাশিষ ভট্রাচার্য্য, বাবু সুবাস সরকার, নারায়ন সরকার, কবি ও সাংবাদিক শাহাদাত হোসেন চৌধুরী, কবি শাহাদাত হোসেন লিটন, কবি ফিরোজ উদ্দিন বাদল প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে দেশের বিভিন্ন উপজেলা, জেলা ও পার্বত্য জেলার অন্তঃত অর্ধশত কবির সমাগম ঘটে।

অনুষ্ঠান সহযোগি সঞ্চালকের দায়িত্ব পালন করেন যথাক্রমে কবি ও সাংবাদিক রাজীব মজুমদার, কবি পুশকীন চৌধুরী ও তাছনিম মাহবুব তানহা। চট্টগ্রামের আঞ্চলিক গান শোনায় শিশু শিল্পী ইতি বড়ুয়া।