banner

শেষ আপডেট ১৭ জুলাই ২০১৯,  ২১:১৯  ||   বৃহষ্পতিবার, ১৮ই জুলাই ২০১৯ ইং, ৩ শ্রাবণ ১৪২৬

শীঘ্রই শুরু হচ্ছে চসিকের ২শ’ ২ কোটি টাকার ২৩ তলা ভবন নির্মাণ কাজ—মেয়র

শীঘ্রই শুরু হচ্ছে চসিকের ২শ’ ২ কোটি টাকার ২৩ তলা ভবন নির্মাণ কাজ—মেয়র

২০ মার্চ ২০১৯ | ২১:৫৯ |    নিজস্ব প্রতিবেদক
  • শীঘ্রই শুরু হচ্ছে চসিকের ২শ’ ২ কোটি টাকার ২৩ তলা ভবন নির্মাণ কাজ—মেয়র

 

ক্রাইম প্রতিবেদকঃ শীঘ্রই নগর ভবন নির্মাণের কাজ শুরু করছে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন। নাগরিক সেবা প্রদান ও সুবিধাদি নিশ্চিত এবং কর্পোরেশনের কর্মকর্তা কর্মচারীদের কর্মপরিবেশ নিশ্চিত করার লক্ষ্যে এই প্রকল্প গ্রহন করা হয়েছে। প্রকল্প বাস্তবায়নের শেষ সময়সীমা নির্ধারন ধরা হয়েছে ২২ সালের জুন পর্যন্ত। নির্মিতব্য নতুন ভবনটি ২৩ তলা বিশিষ্ট হবে। এর ব্যয় ধরা হয়েছে ২শ’ ২ কোটি ২৬ লাখ টাকা। মোট ৩৩ হাজার ৯শ পঞ্চান্ন বর্গফুট জমির ওপর এই নগর ভবন নির্মিত হবে। এতে লিফট, শীতাতপ নিয়ন্ত্রন ব্যবস্থা ও সার্বক্ষনিক বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিতে সাবস্টেশন, জেনারেটর এবং সোলার প্যানেল স্থাপন করা হবে। এই প্রকল্পে আরো যা যা থাকবে তা হলো কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আনা নেয়ার জন্য টি অফিস বাস ২টি, এরিয়াল লিফট ৩টি, ওয়াটার ভাউজার ৩টি, ডাবল কেবিন পিকআপ ১৪টি, জীপ ৮টি, পাজারো ১টি।

মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন আজ বুধবার সকালে ৪৪ তম সাধারণ সভায় সভাপতির বক্তব্যে এসব তথ্য জানান।

সভায় আগামী ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবস জাকজমকপূর্ণ পরিবেশে উদযাপনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। আগামী বছর স্বাধীনতার সুবণ জয়ন্তির বছর। এবছরকে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনার সাথে উদযাপনে চসিককে ব্যাপক কর্মসচির গ্রহন করার জন্য দিক নির্দেশনা দেন মেয়র।

সভায় চসিক ভারপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাহী কর্মকতা মোহাম্মদ আবু শাহেদ চৌধুরীর সঞ্চলনায় প্রধান প্রকৌশলী লে:কর্ণেল মহিউদ্দিন আহমদ, প্রধান শিক্ষা কর্মকর্তা সুমন বড়ৃয়া স্পেশাল ম্যাজিষ্ট্রেট জাহানারা ফেরদোস,নিবার্হী ম্যাজিষ্ট্রেট আফিয়া আকতার এবং চসিক প্যানেল মেয়র,সাধারণ ও সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর,কর্পোরেশনের বিভাগীয় ও শাখার প্রধান গন উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়া নগর সেবাধমী প্রতিষ্ঠানের প্রধান ও প্রতিনিধি সভায় উপস্থিত ছিলেন ।

সভাপতির বক্তব্যে মেয়র আরো বলেন, নগরীর বাস- ট্রাক নির্মাণ ও বিভিন্ন অবকাঠামোগত উন্নয়নের জন্য ১২শ ৩০ কোটি টাকা একনেকে অনুমোদিত হয়েছে। ১৬ একর জায়গার উপর প্রায় ২৯৭ কোটি টাকা ব্যয়ে নগরীর কুলগাঁও সর্বাধুনিক বাস-ট্রাক টার্মিনাল নির্মাণের পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে টার্মিন্যাল এলাকায় সাইন বোর্ডও রেড় মার্ক করা হয়েছে। সেই জমি যাতে কেউ বেচাঁ-বিক্রয় এবং স্থাপনা নির্মান যাতে করতে না পারে, সেদিকে বিশেষ নজরধারী রাখার জন্য সংশ্লিষ্ঠদের নির্দেশ দেন তিনি। এই প্রকল্প বাস্তবায়নে সকল নগরবাসী সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন মেয়র।

এছাড়াও এ প্রকল্পের আওতায় নগরীর কাঁচা রাস্তা সমুহের উন্নয়ন রয়েছে। নগরী যে সমস্ত রাস্তা জনগুরুত্ব পুর্ণ, তা আগামী ৩ কর্মদিবসে মধ্যে সাধারণ ও সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলরদেরকে সংশ্লিষ্ঠ শাখায় তালিকা জমা দেয়ার আহবান জানান মেয়র। তিনি বলেন পরিচ্ছন্ন সেবকদের নিরাপদ আবাসনের বিষয় চিন্তা করে ১৪ তলা বিশিষ্ট ৭টি ভবন নির্মাণ করা হবে । যার কাজ শিঘ্রি শুরু হবে। এই ৭টি ভবনে ১৩০৮টি ফ্ল্যাট হবে। প্রতি ফ্ল্যাটের আয়তন হবে ৫৫০ বর্গফুট।

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় পরিচ্ছন্ন সেবকদের জন্য এ আবসনের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। এগুলো নির্মিত হলে সেবকরা উন্নত আরামদায়ক পরিবেশে জীবন যাপন করতে পারবে। ভবনগুলো প্রতিটিতে ২টি লিফট, হল রুমসহ আবাসিক সকল সুযোগ সুবিধা থাকবে। এ প্রকল্প বাস্ত¦বায়নের ২শ ৩১ কোটি ৪২ লাখ ৬৫ হাজার টাকা ব্যয় হবে। এ জন্য এই প্রকল্পের টেন্ডার প্রক্রিয়া আগামী সপ্তাহে সম্পন্ন করা হবে। সভায় নগরীকে স্মার্ট , গ্রিন ও ক্লীন সিটিতে রূপান্তের লক্ষ্যে এলইডি লাইট স্থাপন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্পোরেশন।

এছাড়াও দুর্যোগ প্রতিরোধে ফায়ার সার্ভিসে উদ্যোগে আগামী মাসে ১১,২৪ ও ২৬ নং ওয়ার্ডে স্বেচ্ছাসেবকদের তালিকা প্রণয়নপুর্বক তদনুয়ায়ী অনুযায়ী প্রশিক্ষন প্রদান, নগরীর ৪১টি ওয়ার্ডের ময়লা-আবর্জনা দ্রুত অপসারণের লক্ষ্যে ১১টি টমটম গাড়ি প্রদান,নগরীর যানজট নিরসনে পার্কিং ও পরিবহন শৃংখলার বিষয়ে বাস, সিএনজিচালিত ট্যাক্সি ও রিক্সা মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দ এবং পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের নেতৃবৃন্দের সাথে পৃথক পৃথকভাবে মতবিনিময় আয়োজন এর সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।সভায় চসিক ৫ম নির্বাচিত পরিষদের ৪৩তম সভার কার্যবিবরণী অনুমোদিত হয়।
এছাড়া সভায় অর্থ ও সংস্থাপন, শিক্ষা,স্বাস্থ্য,পরিবার পরিকল্পনা ও স্বাস্থ্যরক্ষা, নগর পরিকল্পনা ও উন্নয়ন, নগর অবকাঠামো নির্মাণ ও সংরক্ষন, আইন শৃংখলা এবং পরিচালনা ও রক্ষণাবেক্ষন, পানি ও বিদ্যুৎ, সমাজকল্যাণ ও কমিউনিটি সেন্টার, পরিবেশ উন্নয়ন, যোগাযোগ, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা, দারিদ্র হ্রাসকরণ ও বসতি উন্নয়ন, পরিচালনা ও রক্ষণাবেক্ষণ, নারী ও শিশু বিষয়ক স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যানগণ স্ব-স্ব স্ট্যান্ডিং কমিটির কার্যবিবরণী উপস্থাপন করেন এবং তা সর্বসম্মতিক্রমে গৃহিত হয়।

এছাড়া ৩৭ নং উত্তর মধ্যম হালিশহরকে পীরে কামেল হযরত মুনির উল্লাহ(র.) এর নামকরনে ‘মুনির নগর’ রাখারও সিদ্ধান্ত হয়। সভায় নিউজিল্যান্ডে ক্রাইস্টচার্চে হামলা নিহত বাংলাদেশী নাগরিকসহ নগরীতে নিহত ব্যক্তিদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ মুনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। মুনাজাত পরিচালনা করেন চসিক মাদ্রাসা পরিচালক আলহাজ্ব হারুন উর রশিদ চৌধুরী।