banner

শেষ আপডেট ২০ মে ২০১৯,  ২১:৩০  ||   মঙ্গলবার, ২১ই মে ২০১৯ ইং, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

পূর্বাচল প্রকল্পে কোন অনিয়ম ও দুর্নীতি বরদাশত করা হবে না–গণপূর্তমন্ত্রী

পূর্বাচল প্রকল্পে কোন অনিয়ম ও দুর্নীতি বরদাশত করা হবে না–গণপূর্তমন্ত্রী

৯ মার্চ ২০১৯ | ১৯:৩২ |    নিজস্ব প্রতিবেদক
  • পূর্বাচল প্রকল্পে কোন অনিয়ম ও দুর্নীতি বরদাশত করা হবে না–গণপূর্তমন্ত্রী

২০২১ সালের মধ্যে পূর্বাচলকে মানুষের বসবাসের উপযোগী আধুনিক শহর হিসেবে গড়ে তোলা হবে বলে জানিয়েছেন গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।আজ শনিবার দুপুরে রাজধানীর পূর্বাচলে বিভিন্ন প্রকল্পের অগ্রগতি, কাজের মান, উন্নয়ন কাজ সরেজমিন পরিদর্শন শেষে প্রেসব্রিফিংয়কালে তিনি একথা বলেন।
পূর্বাচল প্রকল্পে কোন অনিয়ম ও দুর্নীতি বরদাশত করা হবে না জানিয়ে রেজাউল করিম বলেন, ‘পূর্বাচলের বিভিন্ন প্রকল্প নিয়ে নানা প্রতিবন্ধকতা ছিল। এসব প্রতিবন্ধকতা দূর করে আমাদের কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে। আমি আশা করছি, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে পূর্বাচলে মানুষের বসবাস নিশ্চিত করা হবে। ২০২১ সালের মধ্যে পূর্বাচল প্রকল্পের কাজ পুরোপুরি শেষ হবে এবং পরিপূর্ণভাবে মানুষের বসবাসের উপযোগী একটি আধুনিক শহর হবে পূর্বাচল।’
পূর্বাচল প্রকল্প বাস্তবায়ন করার ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট সবাইকে জবাবদিহির আওতায় আনা হবে জানিয়ে গণপূর্তমন্ত্রী বলেন, প্রকল্প বাস্তবায়নে যেন দেরি না হয় সে লক্ষেই আমরা কাজ করছি। কোনো অবস্থাতেই প্রকল্পের মেয়াদ ও তার ব্যয় বাড়ানো যাবে না।
বস্তিবাসী, নিম্নবিত্তসহ সবার জন্য আবাসন ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে বর্তমান সরকার কাজ করছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, রাজউকসহ অন্যান্য সেবা প্রতিষ্ঠানকে জনবান্ধব করতে এবং জবাবদিহির আওতায় আনতে কাজ করছে। প্রধানমন্ত্রীরও এমন নির্দেশনা দিয়েছেন। পূর্বাচলসহ অন্যান্য প্রকল্পের কাজ এগিয়ে চলছে। কোনো প্রকল্পে অনিয়ম, দুর্নীতি বরদাশত করা হবে না। পূর্বাচলে যারা জমি দিতে বাধা সৃষ্টি করেছিলেন সবাইকে জমির তিনগুণ বেশি দাম দেওয়া হচ্ছে।
এসময় গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব শহীদ উল্লাহ খন্দকার, রাজউকের চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
এর আগে সকাল সাড়ে ৯টায় কুড়িল ফ্লাইওভারের পূর্বপ্রান্তে বসুন্ধরা কনভেনশন সেন্টারের সামনের খাল থেকে ঝটিকা পরিদর্শন শুরু করেন গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী।
এ সময়ে মন্ত্রী রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) পূর্বাচল নতুন শহর প্রকল্প ও ১০০ ফুট খাল খনন প্রকল্পের অগ্রগতি ও উন্নয়ন কাজ পরিদর্শন করেন।