banner

শেষ আপডেট ১২ ডিসেম্বর ২০১৮,  ২০:০৯  ||   বৃহষ্পতিবার, ১৩ই ডিসেম্বর ২০১৮ ইং, ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

চাকুরীর প্রলোভনে প্রতারকের থপ্পরে ১৬ চাকুরী প্রত্যাশী

চাকুরীর প্রলোভনে প্রতারকের থপ্পরে ১৬ চাকুরী প্রত্যাশী

১৭ নভেম্বর ২০১৮ | ২০:২৬ |    নিজস্ব প্রতিবেদক
  • চাকুরীর প্রলোভনে প্রতারকের থপ্পরে ১৬ চাকুরী প্রত্যাশী

 

ক্রাইম প্রতিবেদকঃ  নগরীর রিকসাচালক, সিএনজি চালক, দিন মুজুরের প্রায় ১৬ জন সন্তান চাকুরীর প্রলোভনে প্রতারকের থপ্পরে পড়ে নগদ অর্থ হারিয়েছেন। এসব ভুক্তভোগীদের ৫৪৫ নাম্বারে কল করে চাকুরীর লোভ দেখিয়ে ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রের সীল স্বক্ষরযুক্ত নিয়োগপত্র পাঠিয়ে বিভিন্ন সময়ে বিকাশে এসব অর্থ হাতিয়ে নেয়া হয়েছে।

ভুক্তভোগীরা টাকা দেয়ার পর এসব চাকুরীদাতাদের নাম্বারে ফোন করলে বিভিন্ন অশালীন কথাবার্তা বলে আসছে। আজ ১৭ নভেম্বর শনিবার চাকুরী দাতাতের নাম্বারে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তারা একেক বার একেক কথা বলছেন।

চাকুরীর জন্য টাকা দেয়া এসব গরীব পরিবারের সন্তানরা হলেন,  নগরীর বহদ্দারহাট খাজা রোডের বাসিন্দা ।

ভুক্তভোগীরা হল, জান্নাতুল নাঈম, মিতা আক্তার, মহিমা আক্তার, রিতা আক্তার, কলি আক্তার, নিপা আক্তার, শারমিন, কাউছার, রেশমি আক্তার, কুলচুমা, বিবি আয়েশা, মহিউদ্দিন, রনি আক্তার, মোহাম্মদ ইমাম হোসেন, জেনিফা ইয়াসমিনসহ আরো অনেকে।
জানা গেছে, গত আগষ্ট মাসে ৫৪৫ নাম্বার থেকে ভুক্তভোগী জান্নাতুল নাঈমের পিতার কাছে কল আসে চাকুরী দেয়ার। সেই বিশ্বাসে জান্নাতুল নাঈমের পিতাকে ঠিকানা দিতে বলে। ঠিকানা দিলে ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র বাড়ী – ২৯০, রোড-৬, মোহাম্মদদীয়া হাউজিং সোসাইটি, ঢাকা-১২০৭ ঠিকানাযুক্ত একটি নিয়োগপত্র আসে।

নিয়োগপত্র আসলে একটি বিকাশ নাম্বারে ২০৫০ টাকা দিতে বলে। চক্রটি বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন নাম্বারে জান্নাতুল নাঈমের পিতাকে আরো কয়েকজনকে চাকুরী দেয়া হবে বলে জানান। তবে নিয়োগপত্রে সকলের বেতন ১৩ হাজার ৫০০শ’ টাকা বলে উল্লেখ রয়েছে। এদিকে চাকুরীর প্রলোভনে জান্নাতুল নাঈমের পিতা আরো এভাবে প্রায় ১৫ পরিবারকে বললে তারাও একই কায়দায় নিয়োগপত্র পেয়ে ২০৫০ টাকা করে পাঠায়। প্রথম থেকে ০১৬২৮৮১৬৮৪৪, ০১৮৪৩৯৪৩৯১৩, ০১৮৪০৯৮২২৪৭, ০১৮৫৯৩০৩৯৭২, ০১৮৬৮৮৯৬৬৭৩, ০১৭৯৯৬১৮৭৬১৫ (রকেট নাম্বার), ০১৭১৯৮৩২৬৮১ নাম্বারগুলো থেকে বিকাশ ও চাকুরীর বিষয়ে লেনদেন কথাবার্তা হয়।

টাকা দেয়ার পর চাকুরীর জন্য সবাই নাম্বারগুলোতে একের পর এক জানতে চাইলে তাদের চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ইন্টারভিউ আছে বলে জানান। এমনকি ইন্টারভিউর আগে একটা সার্জিক্যাল মেশিন দিবে বলে তিন হাজার টাকা করে দিতে বলেন। সকলে অনেক কষ্টে আরো তিন হাজার টাকা করে উল্লেখিত নাম্বারে বিকাশ করে। টাকা পাওয়ার বিষয়ে সেই নাম্বারগুলোতে ফোন করে নিশ্চিত করেন। সেই টাকা দেওয়ার পর থেকে ইন্টারভিউ আর চাকুরীতো দূরে থাক জানতে চাইলে চাকুরীদাতারা হুমকি ধমকি এমনকী অসংগতি কাতবার্থা বলেন। এর মধ্যে আজ সাড়ে ১২ টায় চাকুরীদাতা এই ০১৮৫৯৩০৩৯৭২ নাম্বারে যোগাযোগ করলে, এক মহিলা ফোনটা রিসিভ করে পরিচয় জানতে চান। সাংবাদিক পরিচয় পাওয়ার পর তখন তিনি বিভিন্ন অসংগতিপূর্ণ কথা বলে রেখে দেন।