banner

শেষ আপডেট ২০ অগাস্ট ২০১৮,  ২১:৫৩  ||   মঙ্গলবার, ২১ই আগষ্ট ২০১৮ ইং, ৬ ভাদ্র ১৪২৫

শতবর্ষী গাছ কাটা নিয়ে রুল, ৬ মাসের স্থিতাবস্থা

শতবর্ষী গাছ কাটা নিয়ে রুল, ৬ মাসের স্থিতাবস্থা

১৮ জানুয়ারী ২০১৮ | ১৪:০২ |    নিজস্ব প্রতিবেদক
  • শতবর্ষী গাছ কাটা নিয়ে রুল, ৬ মাসের স্থিতাবস্থা

ঢাকা অফিস : শতবর্ষী দুই সহস্রাধিক গাছ কাটায় ছয় মাসের স্থিতাবস্থার (গাছ যে অবস্থায় আছে সে অবস্থায় থাকবে) আদেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। আজ বৃহস্পতিবার বিচারপতি জুবায়ের রহমান চৌধুরী ও বিচারপতি ইকবাল কবিরের হাইকোর্ট বেঞ্চ যশোর রোডের ঐতিহ্যবাহী গাছ কাটা নিয়ে রুলসহ এ আদেশ দেন। রিট আবেদনে পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। এর আগে স্বাধীনতা যুদ্ধসহ শত বছরের ঐতিহ্য-স্মৃতি বিজড়িত যশোর রোডের গাছ কাটা নিয়ে গত সোমবার একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক শেখ মো. মহিবুল্লাহর পক্ষে লিগ্যাল নোটিশ পাঠান সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ইশরাত হাসান।



নোটিশে বিবাদী করা হয়েছে, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সচিব, পরিবেশ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, যশোরের জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারকে। যশোর শহর থেকে বেনাপোল পর্যন্ত রাস্তার দৈর্ঘ্য ৩৮ কিমি। এই রাস্তা সম্প্রসারণ প্রকল্পটি পাস হয় ২০১৭ সালের মার্চ মাসে। রাস্তা সম্প্রসারণের জন্য টেন্ডার অনুমোদনের কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে।  এ মাস অর্থাৎ জানুয়ারিতে হয়ে গেলে ফেব্রুয়ারিতে কাজ শুরু করা সম্ভব হবে। গত ৬ জানুয়ারি শনিবার যশোর জেলা প্রশাসকের সভাকক্ষে এক মতবিনিময় সভায় সিদ্ধান্ত হয় এ গাছ কাটার বিষয়ে।



ইশরাত হাসান বলেন, ওপার বাংলায় সরকার একই রোডে গাছ কাটার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলো। পরে কলকাতা হাইকোর্ট সরকারের সিদ্ধান্তে স্থগিতাদেশ দেন। আমরা চাই রাস্তা হোক। তবে গাছ রেখেই। কারণ এটি স্বাধীনতার স্মৃতি বিজড়িত সড়ক। যে সড়ক দিয়ে হাজার হাজার এ দেশীয় শরণার্থী ভারতে গিয়েছিলো। এই গাছগুলো সেসব শরণার্থীদের সাক্ষী হিসেবে দণ্ডায়মান। তাই সাত দিনের মধ্যে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ চেয়ে এ নোটিশ পাঠানো হয়েছে।

১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় এই যশোর রোড দিয়েই লাখ লাখ শরণার্থী ভারতে গিয়ে আশ্রয় নেন। শরণার্থীদের সেই ঢল নিয়ে বিখ্যাত মার্কিন কবি অ্যালেন গিন্সবার্গ সেপ্টেম্বর অন যশোর রোড নামে একটি কবিতাও লেখেন। পরবর্তীতে গায়ক বব ডিলান এবং অন্যদের সহায়তায় সেই কবিতাকে তিনি গানেও রূপ দিয়েছিলেন।