banner

শেষ আপডেট ২০ এপ্রিল ২০১৯,  ১৮:৪৮  ||   বুধবার, ২৪ই এপ্রিল ২০১৯ ইং, ১১ বৈশাখ ১৪২৬

ঈদগাওর অসংখ্য সড়ক-উপসড়ক ক্ষতবিক্ষত

ঈদগাওর অসংখ্য সড়ক-উপসড়ক ক্ষতবিক্ষত

১১ জুলাই ২০১৫ | ১৩:৫৮ |    নিজস্ব প্রতিবেদক
  • ঈদগাওর অসংখ্য সড়ক-উপসড়ক  ক্ষতবিক্ষত

কক্সবাজার সদর উপজেলার বৃহত্তর ঈদগাওয়ের অসংখ্য সড়ক-উপসড়ক ও ব্রীজ ক্ষতবিক্ষত হয়ে পড়েছে। এতে করে জন ও যান চলাচল করতে না পারায় দারুনভাবে বিপাকে পড়েছে অসহায় লোকজন। পাশাপাশি বিশাল এলাকার জনজীবন লন্ডভন্ড হয়ে গেছে। যাতে করে এলাকায় শত শত মানুষজন পানিবন্দী হয়ে দুর্ভোগ আর দুর্গতিতে পড়েছে। সে সাথে যত্রতত্র স্থানে কর্দমাক্তে চেয়ে গেছে। বৃহত্তর ঈদগাঁওর গ্রামাঞ্চলের সাধারণ অসহায় লোকজন ঈদ আনন্দ নিরানন্দে কাটবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন
জানা যায়, ঈদগাঁওর লোকজন চরমভাবে বিপর্যস্থ হয়ে পড়ার পাশাপাশি বৃহত্তর ঈদগাঁও তথা চৌফলদন্ডী, পোকখালী, ইসলামাবাদ, জালালাবাদ, ইসলামপুর ও প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে লোকজন পানিবন্দী হওয়ায় অসহায় অবস্থায় নিদারুন কষ্টে নিপতিত হয়েছে। এখনো তারা সে ক্ষতি পুষিয়ে উঠতে পারছে না। গ্রামাঞ্চলের অনেকে ঘুরে দাড়াতে চাইলেও পারছে না কোনভাবে। তাছাড়াও পোকখালীর নতুন রাবারড্যাম সংলগ্ন এলাকায় ভেঙ্গে পোকখালীর প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলের বসতবাড়ী পানিবন্দী অবস্থায় বলে জানান এলাকাবাসী।
অপরদিকে পোকখালী এলাকার ভেঙ্গে যাওয়া রাস্তাঘাট সংস্কার করা না হলে এলাকার বহু লোকজন ঈদ আনন্দ থেকে পিছপা হয়ে পড়বে । ঈদগাঁওয়ের পালপাড়া, চৌধুরী পাড়া, কুমার পাড়া, ভাদিতলা, দরগাহ পাড়া, হাসিনা পাহাড়, মাইজপাড়া, বাজার এলাকা, কালিরছড়া, মাছুয়াখালী, মেহেরঘোনা, জালালাবাদের মোহনবিলা, তেলিপাড়া, জলদাস পাড়ায় এখনো অনেক পরিবার অনাহারে-অর্ধাহারে দিনাতিপাত করছে।
এছাড়া ঈদগাঁও-ইসলামাবাদ যাতায়াতের অন্যতম যোগাযোগ মাধ্যমে বাঁশঘাটার ফুট ব্রীজটি দেবে যাওয়ার কারনে জন ও যানবাহন চালকরা চরম আতঙ্কে পড়েছে। যে কোন মুহুর্তে ঐ ব্রীজটি ভেঙ্গে প্রাণহানির আশঙ্কা প্রকাশ করেন স্থানীয় লোকজন। পোকখালী, গোমাতলীসহ ইসলামাবাদের বিভিন্ন এলাকার লোকজনের বাজারে আসার একমাত্র চলাচলের রাস্তা ছিল এ ব্রীজটি। কিন্তু বর্তমানে ভারী বর্ষণ ও কিছু দিন আগে অধিক বালি উত্তোলনের ফলে এটি দেবে যাওয়ার কারনে বিশাল এলাকার লোকজন দুর্ভোগের চরম পর্যায়ে পড়েছে। দ্রুততম সময়ে লোকজনের চলাচলের সুবিধার্থে ব্রীজটি পূনঃ সংস্কারের দাবী জানান পথচারীরা। অপরদিকে দরগাহ রোডের গাইড ওয়াল ব্রীজটি সহ যাতায়াত রাস্তা ভেঙ্গে যাওয়ায় দরগাহ পাড়া, ভাদিতলা ও হাসিনা পাহাড় এলাকার দশ হাজার লোকজনের চলাচল সম্পূর্ন বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।এ যাতায়াত সড়কটি আর ব্রীজটি সংস্কার না হলে বিশাল এলাকার অসহায় লোকজনের ঈদ আনন্দ নিরানন্দে কাটবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। কারনে দুর্ভোগ আর দুর্গতিতে পড়েছে এলাকাবাসী। এদিকে মাইজপাড়া গ্রামাঞ্চলের রাস্তা ভেঙ্গে বৃহত্তর এলাকার যোগাযোগ ও বিচ্ছিন্ন রয়েছে বলে জানান শিক্ষার্থী আবু নাছির। পালপাড়াস্থ গরুর হালদা সড়কের পার্শ্ববর্তী ব্রীজের সাইট রাস্তা ভেঙ্গে চলাচল অযোগ্য বলে জানান অনেকে। ইসলামাবাদের পাহাশিয়াখালী, টেকপাড়া, সিকদার পাড়া সড়ক ভেঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন । পাশাপাশি পাহাড়ী ঢলের পানিতে ঈদগাঁওয়ের প্রধান ডিসি সড়কটি পানিতে লঙ্করঝঙ্কর মার্কা সড়কে পরিণত হয়েছে।এ সড়ক দিয়ে ছোট বড় যানবাহন চলাচল ও দূর-দূরান্ত থেকে আগত লোকজনের চলাচল করতে দারুনভাবে হিমশিম খাচ্ছে।
তবে সচেতন মহলের মতে, ঈদের পূর্বে যদি জরুরী ভিত্তিতে বন্যা কবলিত এলাকার রাস্তাঘাট, ব্রীজ সংস্কার করা না হয়, তাহলে বৃহত্তর এলাকার শত শত লোকজনের ঈদ আনন্দ কাটবে নিরানন্দে ।