banner

শেষ আপডেট ২ জুলাই ২০১৭,  ২০:১২  ||   সোমবার, ২৫ই সেপ্টেম্বর ২০১৭ ইং, ১০ আশ্বিন ১৪২৪

নির্ধারিত সময়েই সংবিধান অনুযায়ীই নির্বাচন হবে–নাসিম :: দি ক্রাইম :: অপরাধ দমনে সহায়ক ::

নির্ধারিত সময়েই সংবিধান অনুযায়ীই নির্বাচন হবে–নাসিম

২ জুলাই ২০১৭ | ২০:০৭ |    নিজস্ব প্রতিবেদক
  • নির্ধারিত সময়েই সংবিধান অনুযায়ীই নির্বাচন হবে–নাসিম

ঢাকা অফিস : অহেতুক মাঠ গরম করার জন্য বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া আবারও মাঠে নেমে একের পর এক মিথ্যাচার করে যাচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছেন ১৪ দলীয় জোটের মুখপাত্র ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিম।আজ রোববার দুপুরে রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে ১৪ দলের বৈঠক শেষে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করেন।

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) একাংশের সাধারণ সম্পাদক শিরীন আকতারের সভাপতিত্বে ১৪ দলীয় জোটের বৈঠক হয়। এতে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের মধ্যে আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, বি এম মোজাম্মেল হক, মৃণাল কান্তি দাস, আব্দুস সবুর, বিপ্লব বড়ুয়া, ওয়ার্কার্স পার্টির রাশেদ খান মেনন, কামরুল আহসান, সাম্যবাদী দলের দিলীপ বড়ুয়া, গণতন্ত্রী পার্টির শাহাদাত হোসেন, তরিকত ফেডারেশনের নজিবুল বশর মাইজভাণ্ডারী, কমিউনিস্ট কেন্দ্রের ডা. ওয়াজেদুল ইসলাম, অসিত বরণ রায়, বাসদের রেজাউর রশিদ খান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, সরকার যেকোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় এগিয়ে এসেছে। সাহসের সাথে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় দ্রুত পদক্ষেপ নিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে।

খালেদা জিয়ার উদ্দেশে তিনি বলেন, নির্ধারিত সময়েই সংবিধান অনুযায়ীই নির্বাচন হবে। এখানে অন্য কিছু ঘটার সম্ভাবনা নেই। ১৪ দলের সরকার সাংবিধানিক ও গণতান্ত্রিক পথেই আছে। সরকার নির্ধারিত সময়ে নির্বাচন করবে। জনগণ আবারও গণতান্ত্রিক শক্তিকেই শক্তিশালী করবে। এ ব্যাপারে কোনো ব্যাত্যয় ঘটবে না।

তিনি আরো বলেন, কোনো চক্রান্তের রাজনীতি এ দেশে করে লাভ হবে না। আমরা ২০১৪ সালের নির্বাচনে তাদেরকে পরাজিত করেছি। ইনশাআল্লাহ আগামী নির্বাচনের মাঠেও ১৪ দল ঐক্যবদ্ধভাবে তাদেরকে পরাজিত করব। আমরা তাদের চক্রান্তের ব্যাপারে সতর্ক আছি এবং থাকব।

সরকার বিচার বিভাগকে ধ্বংস করেছে, বিএনপি নেত্রীর এমন অভিযোগের বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, অহেতুক তিনি বিচার বিভাগকে দোষারোপ করছেন। তিনি নিজেই তো হাজিরা দিতে একের পর এক সময় নেন। তার সরকার ক্ষমতায় থাকাকালে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার বিলম্বিত হয়েছিল। জাতীয় চার নেতা হত্যার বিচার বিলম্বিত হয়েছিল। তাই তার মুখে এসব কথা মানায় না। তার আমলেই বরং বিচার বিভাগের স্বাধীনতা নস্যাৎ করা হয়েছিল। এই দেশে এখন সবচেয়ে বেশী স্বাধীন হলো বিচার বিভাগ। সেজন্য প্রধান বিচারপতি পর্যন্ত প্রকাশ্যে অনেক কথা বলেন, অনেক উপদেশ দেন। তা দেশবাসী দেখছে।

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, জনগণের ভোটের ওপরই নির্ভর করবে আগামীতে কে ক্ষমতায় আসবে? এটা জনগণই বলতে পারবে। আর ভ্যাট প্রত্যাহার করার কারণে জনগণ যদি ভোট দেয় তাহলে আমাদের কী করার আছে?

গত বছর গুলশানে হলি আর্টিজানে জঙ্গি হামলার ঘটনা স্মরণ করে তিনি বলেন, এই নির্মম হত্যাকাণ্ড দেশের মানুষকে বিপুলভাবে নাড়া দিয়েছিল। এই জঙ্গির উত্থান বিএনপি-জামায়াতের সময় ঘটেছিল। তার ধারাবাহিকতায় হলি আর্টিজানে ঘটনা ঘটেছিল। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃঢ় পদক্ষেপের কারণে আজকে এই জঙ্গিরা দুর্বল হয়ে গেছে। তবে তারা এখনো নিঃশেষ হয়ে যায়নি।

সামাজিক, রাজনৈতিক এবং পারিবারিকভাবে জঙ্গি প্রতিরোধে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, সবাইকে এগিয়ে এসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ১৪ দলের হাতকে শক্তিশালী করতে হবে। তাহলেই আমরা বাংলাদেশে জঙ্গি নির্মূল ও নিঃশেষ করতে পারব। আমাদের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী অনেক জায়গায় জীবন দিয়ে এই জঙ্গি উত্থানকে দমন করেছে। আমাদের এখনো সময় আছে। এখনই আমাদের রুখে দাঁড়াতে হবে।

জনগণের অনুভূতি বুঝে ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরের বাজেট পাসের জন্য প্রধানমন্ত্রী ও অর্থমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানান ১৪ দলের মুখপাত্র।

বীর মুক্তিযোদ্ধা শহিদুল হক মামাসহ বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিদের মৃত্যুতে ১৪ দলের পক্ষে শোক প্রকাশ করেন মোহাম্মদ নাসিম।

 

Leave a Reply